সংলাপের চিন্তা ভাবনা করছে সরকার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের টানা অবরোধ ও হরতালে দেশ যখন একরকম অচল হয়ে পড়েছে তখন বিরোধী জোটের এই আন্দোলন কর্মসূচি কঠোর হাতে দমনেরKh পদক্ষেপ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি সংকট নিরসনে আলোচনার বিষয়টিও চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। তবে সংলাপের আগে বিএনপির দাবিগুলো বোঝার চেষ্টা করছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সূত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতির মধ্যস্থতায় সংলাপের উদ্যোগ নেওয়া হতে পারে। তবে নাশকতা প্রতিরোধে ধরপাকড় অব্যাহত থাকবে। আওয়ামী লীগের এক জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, আমরা সংলাপ থেকে একেবারে সরে আসিনি। বরং জামায়াতে ইসলামী বাদে বিএনপি ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের পরিকল্পনা করছি। তিনি বলেন, তার মানে এই নয় যে, সরকার বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য ঠেকানোর কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসেছে। তবে এই মুহূর্তে জরুরি অবস্থা জারির কোনও পরিকল্পনা নেই। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী songlapএ ধরনের চোরাগোপ্তা হামলা বন্ধে ব্যর্থ হলে রাজনৈতিক দলগুলোর পরামর্শ চাইবে সরকার। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুরোধে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বিএনপি ও তার সহযোগী দলগুলোকে নিয়ে একটি সংলাপের আহ্বান করতে পারেন। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফারুক খান (অব:) বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র ও আলোচনায় বিশ্বাস করে। জনস্বার্থ বিবেচনা করে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় বসতে সরকার সব সময় প্রস্তুত। সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, চলমান সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে বিদেশি কূটনীতিক, সুশিল সমাজ, ব্যবসায়ী এমনকি সাধারণ মানুষও আওয়ামী লীগ-বিএনপিকে বৈঠকে বসার দাবি জানিয়ে আসছে। তাদের এই চাওয়াগুলো পুরোপুরি উড়িয়ে দেওয়া যায় না। সুতরাং সংলাপ অসম্ভব কোনও ব্যাপার নয়। তবে আলোচনার আগে জামায়াত বিএনপিকে নাশকতার পথ ছাড়তে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে হরতাল ও অবরোধ প্রত্যাহার করতে হবে। তা চলতে থাকলে আলোচনা সম্ভব নয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, সংলাপের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি। শুক্রবার দলের কার্যকরী পরিষদের বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। গণভবনে ওই বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সরকার ইতিমধ্যেই খালেদা জিয়ার ব্যাপারে নমনীয় হয়েছে। তিনি চাইলে এখন দলীয় যে কোনও কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন। সম্প্রতি নাশকতার ঘটনায় খালেদা জিয়ার নামে মামলা হলেও সরকারের নীতিনির্ধারকেরা বলছেন তাকে গ্রেফতার করা হবে না। এছাড়া দেশের জরুরি অবস্থা জারির সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সূত্র : ঢাকা ট্রিবিউন থেকে

Leave a Reply

%d bloggers like this: