শৈত্য প্রবাহের আশঙ্কা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের তাপমাত্রা ক্রমাগত কমতে শুরু করেছে। তাপমাত্রা কমার এ ধারা আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে। এর সঙ্গে রয়েছে শৈত্য প্রবাহের শঙ্কাও।
১১ ডিসেম্বর দেশের সর্বনিম্ন ১১.৪ ডিগ্রি সেলিসিয়াস তাপমাত্রা হবে রাজশাহীতে। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের সর্বশেষ আপডেটে এমনটিই জানানো হয়েছে।
আপডেটে বলা হয়, দেশের বিভিন্ন স্থানের আকাশ কিছুটা মেঘলা থাকলেও বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই। মধ্যরাতের পর হালকা থেকে ভারী কুয়াশা পড়তে পারে। তবে দিন ও রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকবে।
আবহাওয়া অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মাহমুদুল হক সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নিউজগার্ডেন২৪কে জানান, ঢাকাসহ সারাদেশে কুয়াশা থাকতে পারে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। তবে নদীতে কুয়াশা থাকতে পারে একটু বেশি সময়। সারাদেশের তাপমাত্রা বৃহস্পতিবারের মতো শুক্রবারও মোটামুটি অপরিবর্তিত থাকবে।
এদিকে ঘন কুয়াশায় বন্ধ রয়েছে মাওয়া-কাওড়াকান্দিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের ফেরি চলাচল।  ঘাটগুলোর দুই পাশে আটকা পড়েছে শত শত যানবাহন, সাধারণ মানুষ।
কুয়াশার কারণে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আগমনী ফ্লাইটগুলো।
বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় কুয়াশার কারণে কয়েক গজ সামনে কী আছে তাও স্পষ্টভাবে দেখা যাচ্ছে না। কর্মমুখী মানুষকে পোহাতে হচ্ছে বাড়তি ভোগান্তি।
এর আগে বুধবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ১০.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঈশ্বরদীতে ছিল ১২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
রংপুরে তাপমাত্রা ছিল ১২ ডিগ্রি। সৈয়দপুরে ছিল ১২.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Leave a Reply

%d bloggers like this: