শুভ জন্মদিন ফেরদাউস ও মাহতাব

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ডেইলি স্টারের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ফেরদাউস মোবারক ও দৈনিক ভোরের পাতার সহ সম্পাদক Birth-day--মাহতাব শফির জন্মদিন ৮ মে। শুভ জন্মদিন ফেরদাউস ও মাহতাব। ফেরদাউস মোবারক : ১৯৭৯ সালের এই দিনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল উপজেলার ঘিওন গ্রামে ফেরদাউস মোবারক জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মরহুম জয়নাল আবেদিন ও মা রহিমা বেগমের আট সন্তানের মধ্যে তিনি সপ্তম। ফেরদাউস ১৯৯৫ সালে কামারগাঁ উচ্চবিদ্যলয়ের মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি, ১৯৯৭ সালে রাজশাহীর নিউ গভর্মেন্ট ডিগ্রি কলেজের মানবিক বিভাগ থেকে এইচএসসি, ২০০১ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে অনার্স ও একই বিভাগ থেকে ২০০৩ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। মোবারক ২০০৩ সালে ডেইলি বাংলাদেশ টুডে-তে ফিচার বিভাগে প্রদায়ক হিসেবে সাংবাদিকতা শুরু করেন। এরপর কাজের ধারাবাহিকতায় ২০০৪ সালে দি বাংলাদেশ অবজারভারে নিজস্ব প্রতিবেদক ও ২০০৬ সালে দি ডেইলি স্টারে জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক হিসেবে যোগ দেন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি নেতৃত্ব বিকাশের জন্য ফেরদাউস ২০১২ সাল থেকে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি বহুমুখী সমবায় সমিতির যুগ্ম সম্পাদক ও ২০১৪ কার্যবর্ষে ডিআরইউ এর যুগ্ম সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া তিনি গত চার বছর ধরে জার্নালিজম এ্যালামনাই ফোরাম অব রাজশাহী ইউনিভার্সিটির (জাফরু) যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৪ সালে গঠিত চাঁপাইনাবাবগঞ্জ জার্নালিস্ট ফোরাম, ঢাকার সাংগাঠনিক সম্পাদক হিসেবেও কাজ করছেন। নেতৃত্ব বিকাশের পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন সেবামূলক কর্মকাণ্ডও পরিচালনা করেন। গত ১০ বছর ধরে ক্যান্সার সচেতনতা আন্দোলনের (ঈধহপবৎ অধিৎবহবংং ঈধসঢ়ধরমহ) সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে এবং গত পাঁচ বছর ধরে ধূমপানবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত। ফেরদাউস মোবারক ২০০৭ সালের ২৬ জানুয়ারি সালেহা আক্তারের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতির রাজিন সাইফান নামে এক ছেলে রয়েছে। রাইফান এস এফ এক্স গ্রিনহেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে কেজি ওয়ানে ভর্তি হয়েছে। তিনি জানান, তার পছন্দের রং সাদা ও কালো, ফুল রজনী গন্ধা। খেতে ভালোবাসেন সাদা ভাতের সঙ্গে মাছ। আর পছন্দের ফল- আম। অবসর সময়ে বই পড়তে ও ছেলের সঙ্গে সময় কাটাতে পছন্দ করেন। জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন সম্পর্কে ফেরদাউস মোবারক বলেন, ‘পরিবারের কাছের লোকদের এবং ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের নিয়ে ছোট্ট একটি ডিনার পার্টি, সঙ্গে কেক কাটার আয়োজন রয়েছে।’ মাহতাব শফি : ১৯৮৯ সালের এই দিনে চট্টগ্রামের রাউজান থানার পশ্চিম গহিরা গ্রামে মাহতাব শফি জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মরহুম মো. ফরিদ আহমেদ ও মা মোহছেনা বেগমের পাঁচ সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। ২০০৫ সালে চট্টগ্রামের কাট্টলী নুরুল হক চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি, ২০০৭ সালে ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ চট্টগ্রামের মানবিক বিভাগ থেকে এইচএসসি ও ২০১১ সালে চট্টগ্রামের আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন মাহতাব শফি। ২০০৫ সালে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত পাক্ষিক চট্টলচিত্রে ক্রীড়া প্রতিবেদক হিসেবে তিনি সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক পূর্বকোণ, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ, দৈনিক আজাদী, দৈনিক সংবাদ, দৈনিক যুগান্তর, দৈনিক কালেরকণ্ঠ পত্রিকায় প্রদায়ক হিসেবে সাংবাদিকতা করেন। ২০১১ সালে সংবাদ সংস্থা ফেয়ারনিউজ সার্ভিসে (এফএনএস) নিজস্ব প্রতিবেদক, ২০১২ সালে দৈনিক মানবকণ্ঠে নিজস্ব প্রতিবেদক, ২০১৩ সালে দৈনিক আমাদের কন্ঠে নিজস্ব প্রতিবেদক, একই বছরের শেষ সময়ে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ফাস্টনিউজ বিডি ডটকমে নিজস্ব প্রতিবেদক ও ফিলহাল কলকাতার বাংলাদেশ প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালের ২৬ মে দৈনিক ভোরের পাতায় তিনি সহ-সম্পাদক পদে যোগ দেন। শিশু অধিকার ও সুরক্ষা সংক্রান্ত ফিচার ও প্রতিবেদনের জন্য মাহতাব শফি পিএসটিসি কর্তৃক বিশেষ সম্মাননা লাভ করেছেন। লেখালেখির ধারাবাহিকতায় তিনি নিয়মিত কবিতা, গল্প ও উপন্যাস লিখেন। সম্পাদনা করেন সাহিত্যের ছোট কাগজ ‘হরপ্পা’। তিনি জানান, তার পছন্দের রং সাদা, কালো ও নীল। প্রিয় ফুল গোলাপ। খেতে ভালোবাসেন সাদা ভাতের সঙ্গে ইলিশ ভাজা ও শুটকি ভর্তা। আর অবসর সময়ে তিনি গান শুনতে ও ছবি আঁকতে পছন্দ করেন। জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন সম্পর্কে মাহতাব শফি বলেন, ‘বিশেষ কোনো আয়োজন নেই। সাদামাটাই কাটবে। তবে এই দিনে অনেক মানুষের ভালবাসা পাই। এর চেয়ে বিশেষ আর কোনো আয়োজন হয় না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*