‘শিশুদেরকে কোন ধরনের হয়রানি ও ভয়-ভীতি না দেখানোর তাগিদ’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২১ জুলাই ২০১৭, শুক্রবার: সুপ্রিম কোর্ট স্পেশাল কমিটি ফর চাইল্ড রাইট (এসসিএসসিসিআর)-এর চেয়ারম্যান আপীল বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী ও সদস্য হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ আজ ২১ জুলাই ২০১৭ ইং শুক্রবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম জেলা জজ কোর্টে অবস্থিত চট্টগ্রাম শিশু আদালত (মহানগর ও জেলা), সকাল সাড়ে ১১টায় কোতোয়ালী থানা, বিকাল ৩টায় নগরীর রৌফাবাদস্থ মানসিক প্রতিবন্ধী শিশুদের প্রতিষ্ঠান সরকারি শিশু পরিবার (বালক-বালিকা) ও ছোটমনি নিবাস এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় হাটহাজারীর ফরহাদাবাদস্থ মহিলা ও শিশু-কিশোরীদের নিরাপদ হেফাজত কেন্দ্র (সেইফ হোম) পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শনকালীন সময়ে বিচারকদ্বয় এসব স্থানে সংশ্লিষ্টদের সাথে মতবিনিময় করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল চৌধুরী, মহানগর দায়রা জজ মো. শাহেনুর, চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্থানীয় সরকার) দীপক চক্রবর্তী, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুন্সী মশিয়ার রহমান, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এ কিউ এম নাসির উদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা জজ মো. সিরাজুদ্দৌলাহ কুতুবী, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার অরুনাভ চক্রবর্তী, নেজারত বিভাগের ভারপ্রাপ্ত জজ মো. আবদুর রহমান, মহানগর শিশু আদালতের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোছাম্মৎ ফেরদৌসী, অতিরিক্ত ডিআইজি কুসুম দেওয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মোস্তাইন হোসাইন, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. আবদুল ওয়ারীশ, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন) নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী, ঢাকাস্থ সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) মো. জুলফিকার হায়দার, উপ-পরিচালক (ইনস্টিটিউশন-২) এম এম মাহমুদুল্লাহ, চট্টগ্রামস্থ সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বন্দনা দাশ, সিএমপি’র কোতোয়ালী জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম, ইউনিসেফ’র চাইল্ড প্রোটেকশন স্পেশালিস্ট শাবনাজ জেরিন, ইউনিসেফ’র চাইল্ড প্রোটেকশন অফিসার শায়লা পারভীন লুনা, কোতোয়ালী থানার ওসি মো. জসিম উদ্দিন ও বায়েজিদ থানার ওসি মো. মহসিন ও আদালতের বিচারকগণ প্রমুখ। পরিদর্শনকালে বিচারপতিদের সাথে মূল সমন্বয়কের দায়িত্বে ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্থানীয় সরকার) দীপক চক্রবর্তী।
বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী বলেন, শিশু আইন ২০১৩ মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণের জন্য শিশু আদালত, সরকারি শিশু পরিবার, থানা ও সেইফ হোম পরিদর্শন করা হয়েছে। শিশুরা যেন থানা কিংবা আদালতে গিয়ে কোন ধরনের হয়রানির শিকার ও ভয়-ভীতি না পায় সে লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আন্তরিক হতে হবে। নগরী ও জেলার প্রতিটি থানায় শিশু বিষয়ক একজন পুলিশ কর্মকর্তার পাশাপাশি সমাজসেবা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে একজন প্রবেশন অফিসার থাকবে। শিশুদের নিরাপদ রাখাসহ যে কোন বিষয়ে এই দুই জন কর্মকর্তা সিদ্ধান্ত নেবেন। শিশু আইন ২০১৩ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইউনিসেফ ও সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে আগামী এক মাসের মধ্যে থানার শিশু বিষয়ক পুলিশ কর্মকর্তা ও সমাজসেবার প্রবেশন অফিসারদের জন্য কমপক্ষে তিনদিনের একটি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি কুসুম দেওয়ান ও সিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর প্রশিক্ষণের বিষয়ে মুখ্য ভূমিকা রাখবেন। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিশু বিষয়ক পুলিশ কর্মকর্তারা প্রশিক্ষণ নেয়ার পর তারা বদলি হয়ে গেলে শিশু আইন বাস্তবায়নে বাধাগ্রস্ত হবে। সে জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দিষ্ট সময়ের জন্য থানায় রাখতে হবে। থানার মহিলা পুলিশ কর্মকর্তাদের এ দায়িত্ব দেয়া হলে শিশুরা আরো বেশি নিরাপদ থাকবে।
তিনি বলেন, ৯ বছরের নিচে কোন শিশুকে আটক করা যাবে না। ১৮ বছর বয়সের শিশুরা যে কোন ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়তে পারে কিংবা অপরাধীরা তাদেরকে অপরাধে জড়াতে পারে। অপরাধের কারণে শিশুদের বিরুদ্ধে মামলা হলে তাদেরকে হয়রানি কিংবা ভয়-ভীতি না দেখিয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। তিনি শিশু আদালতের মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির তাগিদ দেন। সরকারি শিশু পরিবার পরিদর্শনে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগের বিচারপতি মো. ইমান আলী বলেন, এতিম ও প্রতিবন্ধী শিশুরা যাতে নিরাপদ থাকে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে নিয়মিত তদারকি করতে হবে। তাদেরকে নিজের ছেলে-মেয়ে মনে করে সুষ্ঠু পরিচর্যার মাধ্যমে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা ও বিনোদনে আগ্রহ সৃষ্টি করাতে হবে। সরকারের নির্দেশনায় এসসিএসসিসিআর, সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কমিশনার অফিস ও ইউনিসেফ বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে শিশু আইন ২০১৩ মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আগামীকাল ২২ জুলাই ২০১৭ ইং শনিবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: