শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৬ ডিসেম্বর, শুক্রবার: একাত্তরের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তিনি দলের অন্য নেতাদেরকে নিয়ে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানান। যানজটের কারণে বিএনপি নেত্রীর সেখানে পৌঁছতে দেরি হয় বলে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন কার্যালয়র প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের কারণে ১৯৯১ সালের পর থেকে প্রথমবারের মতো রাষ্ট্রীয় প্রটোকল হারিয়েছেন খালেদা জিয়া। ফলে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে গেলে তাকে সেখানে যেতে হয় সাধারণের সঙ্গেই। তার যাওয়া আর আসার পথ নির্বিঘœ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আলাদা কোনো তৎপরতা থাকে না।
জাতীয় স্মৃতিসৌধে ভোরে রাষ্ট্রীয় আনুষ্ঠানিকতা হয়। ভোর সাড়ে ছয়টার কিছুক্ষণ পর প্রথমে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, মন্ত্রিসভার সদস্যরা এবং সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানান।
এসব আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পর স্মৃতিসৌধ সবার জন্য খুলে দেয়া হয়। আর রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের স্মৃতিসৌধে যাওয়া উপলক্ষে বন্ধ থাকা সড়কে যান চলাচল শুরু হয়। দীর্ঘ বিরতির পর খুলে দেওয়া সড়কে তীব্র যানজট বাধে।
এই যানজট ঠেলে খালেদা জিয়ার স্মৃতিসৌধে পৌঁছতে পৌঁছতে দীর্ঘ সময় লেগে যায় বলে জানিয়েছেন তার প্রেস উইংএর সদস্যরা। তারা জানান, সকাল নয়টার দিকে বিএনপি নেত্রী তার গুলশানের বাসা থেকে স্মৃতিসৌধের উদ্দেশে রওনা হন।
শহীদ বেদীতে বিএনপি চেয়ারপারসনের শ্রদ্ধা জানানোর সময় তার সঙ্গে ছিলেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা সেলিমা রহমান, ওসমান ফারুক, শাহজাহান ওমর প্রমুখ।
স্মৃতিসৌধে গেলেও খালেদা জিয়া গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। সেখানে আনুষ্ঠানিকতা শেষে খালেদা জিয়া রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে চন্দ্রিমা উদ্যানে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফুল নিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে যান।
জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধের সময় সেক্টর কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বঙ্গবন্ধুর নামে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: