লামার পরিত্যক্ত তামাক বান্দরবানে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৮ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার: বান্দরবানের লামা উপজেলায় বর্তমানে ব্যাপক হারে তামাক চাষ করা হচ্ছে। এর মধ্যে বেশির ভাগ তামাকই চাষীদের মাধ্যমে চাষ করছে ঢাকা ট্যোবাকো ও ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো। বান্দরবান সদরেও লামার চেয়ে আনুপাতিক কমহারে তামাক চাষ হচ্ছে। ফলে বান্দরবান সদর ও লামা উপজেলায় কোম্পানীর রয়েছে নিজস্ব ডিপো। বিগত কয়েক বছর ধরে বান্দরবানে ঢাকা ট্যোবাকো ও ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর কর্মকর্তাদের বিরোদ্ধে উঠে এসেছে নানান ধরনের প্রতারনার অভিযোগ। লামার তামাক চাষীরা জানান, বান্দরবান ডিপোর ট্যোবাকো কর্মকর্তারা লামার ডিপোতে পরিত্যক্ত ঘোষিত তামাক কৌশলে বান্দরবানের ডিপোতে অল্প দামে কিনে এনে তা ভাল তামাকের আটিতে ভরে বেশিদামে কোম্পানীতে দিচ্ছে। আর এ ভাবে এখানকার কর্মকর্তারা কোম্পানীর সাথে প্রতারণার মাধ্যমে হয়ে উঠেছেন আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। লামার তামাক বান্দরবানে আনার উদ্দেশ্যে কি তা জানার জন্য লামার এক কৃষকের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, লামার ডিপোতে মাংস খায় কিন্তু হাড্ডি খায়না। কিন্তু বান্দরবানের কর্মকর্তারা হাড্ডিও খায়। একটু দাম কম দিলেও তামাক গুলো আমাদের ফেলে দিতে হয়না। এতে করে আমার আর কর্মকর্তা দু’জনেরই লাভ। তিনি আরো বলেন গত  থেকে তিনবছর ধরে এভাবেই লামার পরিত্যাক্ত তামাক বান্দরবানে আসছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত করলে এর সত্যতা পাওয়া যাবে বলেও তিনি জানান। এ ব্যাপারে ঢাকা ট্যোবাকোর বান্দরবান কর্মকর্তার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর ম্যানেজার জহিরুল ইসলাম জানান, লামা থেকে কোন পরিত্যক্ত তামাক বান্দরবানে আসলে তা যাচাই বাছাই না করেই আমরা ফেরত পাঠাই। আমরা কখনো লামার তামাক বান্দরবানে নেই না। যারা এসব কথা বলেছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: