রোগীদের প্রতি চিকিৎসকদের আচরণ পাল্টানোর তাগিদ শেখ হাসিনার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৬ অক্টোবর, বুধবার: রোগীদের প্রতি চিকিৎসকদের আচরণ পাল্টানোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, রোগ সারাতে ওষুধের মতো গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসকদের কথা। এ জন্য সেবার মনোভাব নিয়ে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ান অ্যান্ড সার্জন (বিসিপিএস) এর ১৩তম সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।1
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটুকুট চাইবো আপনাদের কাছে, আপনারা রোগীদের চিকিৎসা সেবাটা ভালোভাবে দেবেন, এটাই আমরা চাই। কারণ, একটা কথা মনে রাখবেন, একটা ডাক্তারের ওষুধের চেয়ে মুখের কথায় অর্ধেক ওষুধ কিন্তু ভালো হয়ে যায়।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরাও তো রোগী হই মাঝেমাঝে, আমরা বুঝি। সে কথাটা মনে রেখে আপনাদের মহৎ পেশা সততার সঙ্গে পালন করবেন। মানুষের সেবা করার মানসিকতা নিয়ে কাজ করবেন-এটাই আমরা চাই।’2
সরকার প্রধান এই আহ্বান জানালেন যখন দেশের বিভিন্ন এলাকায় চিকিৎসকদের আচরণ নিয়ে প্রায়ই অভিযোগ তুলছেন রোগীরা। চিকিৎসকদের সঙ্গে রোগীদের প্রায়ই বাকবিতণ্ডা এমনকি, হাতাহাতি-মারামারির খবরও আসে গণমাধ্যমে। এর প্রতিক্রিয়ায় প্রায়ই আবার চিকিৎসক ধর্মঘটে রোগীর ভোগান্তিও হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা ১৯৭২ সালের ৮ অক্টোবর সেই সময়ের পিজি হাসপাতালে (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়) একটা ভাষণ দিয়েছিলেন ডাক্তারদের উদ্দেশ্যে। সেখানে তিনি বলেছিলেন, আপনারা ডাক্তার, আপনাদের মন হতে হবে অনেক উদার। আপনাদের মন হবে সেবার। আপনাদের কাছে বড় ছোট থাকবে না। আপনাদের কাছে থাকবে রোগ, কার রোগ বেশি, কার রোগ কম। তাহলেই তো সমাজব্যবস্থা পরিবর্তন হবে এবং মানুষের মনে আপনারা সহযোগিতা পাবেন।’3
‘জাতির পিতার যে কথা, এই কথা সব ডাক্তারদের মনে রাখতে হবে। কারণ, চিকিৎসা একটা পেশা নয়, এটা মহান ব্রত’- এই কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের নিষ্ঠা, আপনাদের মেধা প্রয়োগ করে আপনারা বিশেষজ্ঞ হয়েছেন। আপনাদেরকে সব সময় মনে রাখতে হবে, প্রকৃতিজনকে সেবা দিতে হবে। মানুষের সেবা করাটাই সবচেয়ে বড়। আপনাদের সেবাদানের মনোভাব তৈরি করে মানুষেরর পাশে থাকতে হবে।’
বাংলাদেশে প্রতিটি সরকারি হাসপাতালেই থাকে রোগীদের উপচেপড়া ভিড়। কিন্তু অপর্যাপ্ত চিকিৎসক ও কর্মকর্তাদের কারণে এই রোগীরা কাঙ্ক্ষিত সেবা পান না বলে অভিযোগ আছে। এই বিষয়টি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি জানি এখানে অনেক সমস্যা আছে। ১৬ কোটি মানুষের দেশ। সে তুলনায় ডাক্তারদের সংখ্যা অনেক কম, নার্সের সংখ্যা আরও কম। এমন একটা পরিবেশে মন মানসিকতা ঠিক রেখে সেবা দেয়া কঠিন। এখানে অনেক প্রেসার থাকে, সেটা বুঝতে পারি। কারণ বিদেশে এতো প্রেসার নেয় না। আমাদের দেশের মানুষের ভেতরে আলাদা মানবিক গুণ আছে, সেটা আমরা সব সময় দেখেছি। আপনারা সেভাবে কাজ করুন, আমরা আমাদের চেষ্টা চালিয়ে যাবো আরও ভালোভাবে আমরা যেন সুযোগ করে দিতে পারি।
অনুষ্ঠানে প্রান্তিকজনের কাছে চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দিতে সরকারের নানা উদ্যোগ ও ভবিষ্যত পরিকল্পনাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আন্তরিকভাবে এগিয়ে আসতে হবে চিকিৎসকদেরই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*