রুচি ফেরাতে…

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৯ জানুয়ারী ২০১৯ ইংরেজী, বুধবার: ‘আমার গায়ে জ্বর এসেছে তোমার জন্য, আমার ঈশ্বর জানেন ৃ’ কবি নির্মলেন্দু গুণের কবিতায় জ্বর নিয়ে এই কয়েকটি লাইন কিংবা পূর্ণেন্দু পত্রীর, ‘স্মৃতিতে সর্বাঙ্গ জ্বলে/একশ পাঁচ ডিগ্রী ঘোর জ্বর।/টালমাটাল ঝড় ঘুষি মারে হাড়ে মাসে ব্রক্ষ্মতালু রক্তকণিকায়/যেন তাকে ছিড়েখুঁড়ে অন্য কিছু বানাবে এখুনি।’ কবিতাতে জ্বর প্রসঙ্গটা যেভাবেই আসুক বা কেনো এই মৌসুম বদলের সময়ে সর্দি-জ্বর খুবই সাধারণ একটি বিষয়। একটু সচেতন হতে না পারলে ৩ থেকে ৭দিন ভুগতে হতে পারে। আর জ্বরের পর রয়েছে এক ধরনের ঘোর, জ্বরের পর সারা দিন মুখে তিতকুটে ভাব, কোনও খাবারেই স্বাদ পাওয়া যায় না। এই স্বাদহীন ভাব জ্বরের অন্যতম উপসর্গ। এটিও খুব সাধারণ একটি ব্যাপার। তবে ঘাবড়ে না গিয়ে কিভাবে এ বিরক্তিকর অনুভূতিগুলো থেকে রেহাই পাওয়া যায় তাই জানাচ্ছে অর্থসূচক-
দিনে দু’বার দাঁত ব্রাশ করতে পারেন।
দিনে দু’বার দাঁত ব্রাশ করতে পারেন।
ব্রাশ: মুখের তেতো ভাব দূর করতে মুখের ব্যাকটেরিয়া দূর করা সবচেয়ে আগে প্রয়োজন। দিনে দু’বার দাঁত মাজুন। জিভ ও মাড়ি পরিষ্কার রাখুন।
বেকিং সোডা: মুখের ব্যাকরেটিরায় দূর করতে সাহায্য করে বেকিং সোডা। সম পরিমাণ টুথপেস্ট ও বেকিং সোডা মিশিয়ে সেটা দিয়ে দাঁত মাজুন। অথবা সামান্য বেকিং সোডা জলে গুলে সেই জল দিয়ে কুলকুচি করলেও উপকার পাবেন।
বেশি করে লেবু জাতীয় ফল খাবার পেতে পারেন।
লেবু জাতীয় ফল খান: এই ধরনের ফল যেমন শরীরের জন্য উপকারি, তেমনই ত্বকের জন্যও। কমলালেবু, মোসাম্বি, বাতাবি লেবু জাতীয় ফল খেলে লালা নির্গত হবে। এতে তেতো স্বাদ কেটে যাবে।
লবঙ্গ ও দারচিনি: লবঙ্গ ও দারচিনি গুঁড়ো করে নিন। এই গুঁড়ো এ চা চামচ করে মুখে রাখুন। তেতো স্বাদ কেটে যাবে। লবঙ্গ চিবোতেও পারেন।
বার বার অল্প করে খাবার খান: মুখের স্বাদ আগের মতো না থাকায় অনেকেই খাবার খেতে চান না। তবে বার বার অল্প অল্প করে খাবার খেলে সহনশীলতা চলে আসবে। ভাজা ও স্পাইসি খাবারের বদলে স্বাস্থ্যকর খাবার অল্প অল্প করে খেলে হজম ভাল হবে। এর ফলে আপনা থেকেই ধীরে ধীরে স্বাদ ফিরে আসবে মুখে। নি:শ্বাসের দুর্গন্ধও দূর হবে।
গার্গল: এক গ্লাস জলে এক চা চামচ লবণ দিয়ে গার্গল করুন। এতে মুখের ব্যাকরেটিয়া মরে গিয়ে তিতকুটে স্বাদ কেটে যাবে। গলা ব্যথা থাকলে তাও কমবে।
মিন্ট ফ্লেভারের চুয়িংগাম চিবুতে পারেন।
পুদিনা: মুখে তেতো স্বাদ কাটাতে সাহায্য করে পুদিনা। হজমে সাহায্য করার ফলে নিশ্বাসের দুর্গন্ধও দূর হবে।
তাই পিপারমিন্ট চুউইংগাম মুখে রাখুন। ক্যালরি খরচ হওয়ায় খিদেও পাবে।
প্রচুর পানি পান করুন: দিনে ৭-৮ গ্লাস পানি পান করুন। পানি পাকস্থলি থেকে টক্সিক অ্যাসিড পরিষ্কার করবে। ফলে মুখ ও জিভের তেতো স্বাদ কেটে যাবে।
মদ্যপান-ধূমপান এড়িয়ে চলুন: শরীরের ব্যথা কমাতে অনেকেই মদ্যপান করেন। আবার বাড়িতে বসে বোর হতে থাকলে ধূমপানও করেন কেউ কেউ। এতে মুখের স্বাদহীন ও তিতকুটে ভাব আরও বেড়ে যায়। আবার ধূমপান করার ফলে ফুসফুসের সংক্রমণ সারতেও সময় লাগে।
স্বাস্থ্যকর ও তাজা খাবার খান: ঠান্ডা খাবার না খেয়ে গরম ও হালকা খাবার খান। গরম স্যুপ, সিদ্ধ সব্জি এই সময় যেমন স্বাস্থ্যকর তেমনই মুখের স্বাদও ফিরিয়ে দেবে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: