‘রিভিউ আবেদন না করলেও ১৫ দিন’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর রিভিউ না করলেও Mahabubকামারুজ্জামানের দণ্ড কার্যকরের জন্য সরকারকে ১৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলন তিনি এ কথা বলেন। কামারুজ্জামানের রায় কার্যকর করা নিয়ে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা এটর্নি জেনারেলের বক্তব্যে বিস্ময় প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার মাহবুব বলেন, “আমি ভাবতে পারি না, কীভাবে বক্তব্য দিলেন যে, রিভিউয়ের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না। তার মৃত্যুপরোয়ানা পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে, ফাঁসি দেয়া হবে।” “আপিল বিভাগ তার রায়ে বলেছেন, পূর্ণাঙ্গ রায় পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ করা যাবে। তাহলে কি করে রিভিউয়ের ১৫ দিন সময় অতিক্রম হওয়ার আগে ফাঁসি কার্যকর হবে।” বিশিষ্ট এই ফৌজধারি আইন বিশেষজ্ঞ বলেন, “এটা সম্পূর্ণ বে আইনি, খামখেয়ালী এবং আইন কর্মকর্তাদের অজ্ঞতা। তা না হলে তারা সরকারকে এভাবে পরামর্শ দিতে পারতো না।” তিনি বলেন, “আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, আপিল বিভাগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রায়ের সার্টিফাইড কপি পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে আমরা রিভিউ করব।” সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, “রিভিউয়ের পর তা নিষ্পত্তি হওয়ার পর সিদ্ধান্ত হবে যে, কিভাবে তা কার্যকর হবে। সেখানে মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকবে, নাকি যাবজ্জীবন হবে। কিন্তু কোন অবস্থাতেই রিভিউ আবেদন চূড়ান্ত নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত আপিলের রায় কার্যকর যাবে না।” তিনি বলেন, “যেই মুহূর্তে আমরা সার্টিফাইড কপি পাব, সেই মুহূর্ত থেকে আমরা ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ আবেদন দাখিল করব। আমরা ইতিমধ্যেই সার্টিফাইড কপি পাওয়ার জন্য আবেদন করেছি। এখনো পায়নি।” কামারুজ্জামানের আইনজীবী বলেন, “রিভিউ করার পর রিভিউ আবেদনের চূড়ান্ত শুনানি হবে, শুনানির পরে আবার তার রায় হবে, রায়ের পরে সেই রায় কার্যকর হবে।” ‘১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ করা আমাদের আইনগত অধিকার’ বলেন খন্দকার মাহবুব। ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক মৃত্যু পরোয়ানা জারির বিষয়ে তিনি বলেন, “প্রচলিত আইনানুযায়ী মৃত্যু পরোয়ানা জারি করাটা ঠিক আছে। কিন্তু আইনের বরখেলাপ করে মৃত্যু পরোয়ানা কার্যকর করতে পারবে না।” তিনি বলেন, “রিভিউ নিষ্পত্তি করার পরও কামারুজ্জামানকে জিজ্ঞাসা করতে হবে যে, তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট ক্ষমা চাইবেন কিনা। তিনি যদি ক্ষমা চাইতে রাজি হোন, তাহলে রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত তা কার্যকর করা যাবে না।” খন্দকার মাহবুব বলেন, “আইনে আছে ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ দাখিল করতে হবে। যদি ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ না করি তাহলে সাধারণভাবেই রায় কার্যকর হবে।” সূত্র : শীর্ষনিউজডটকম

Leave a Reply

%d bloggers like this: