রাস্তা পুনঃনির্মাণের দাবীতে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে সুহৃদের মানববন্ধন

মুন্নি আক্তার, গণবিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, ১৩ জুলাই ২০১৭, বৃহস্পতিবার: সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাইশমাইল থেকে গণ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সড়কটি পুনঃনির্মাণের দাবীতে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) সমকাল সুহৃদ সমাবেশ গণ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ব্যানারে মানব বন্ধনে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।
প্রয়োজনীয় সংস্কার, মেরামত, উন্নয়ন আর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাইশ মাইল থেকে নলাম পর্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটি প্রায় তিন মাস ধরে চলাচলের অযোগ্য হয়ে রয়েছে।
সাম্প্রতিক প্রবল বর্ষণ, জলাবদ্ধতা আর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করলেও ভাঙা ইটের টুকরা ফেলা ছাড়া সড়কটি সংস্কারের যথাযথ কোন উদ্যোগ দৃশ্যমান হচ্ছে না।ফলে প্রতিনিয়ত এ সড়কে চলাচলকারী যানবাহন ও পথচারীদের অসহনীয় ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাইশ মাইল থেকে শুরু করে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পর্যন্ত সড়কটির কার্পেটিং উঠে গিয়ে সংস্কারের অভাবে ধীরে ধীরে অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে যেখানে সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে পুকুরের আকার ধারণ করে ফলে পথচারীদের পায়ে হেঁটে যাতায়াত করা একদম অসম্ভব হয়ে পড়েছে।
এছাড়াও রাস্তার দুরবস্থার জন্য প্রতিদিনই যাত্রীদের কোন না কোন দুর্ঘটনার শিকার হতে হচ্ছে। গাড়ি আটকে যাবার ভয়ে কোন গাড়িও এ রাস্তায় চলাচল করতে চায় না। বিপাকে পরে যাত্রীরা বেশি ভাড়ায় যাতায়াত করছেন। এছাড়াও গাড়ি আটকে গেলে যাতায়াতের কোন বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় যাত্রীদের জামা কাপড় ভিজিয়ে পায়ে হেঁটে যাতায়াত করতেও দেখা গেছে বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।
সমকাল সুহৃদ সমাবেশ গণ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি বিধান মুখার্জী বলেন, ‘ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী আমাদের ভোগান্তি দেখতে পান না। বারবার পত্রপত্রিকায় রাস্তার ভোগান্তির খবর প্রকাশ হবার পরেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি’।এছাড়াও অতিসত্বর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন, শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণ ভাবে দীর্ঘদিন থেকেই রাস্তার দুরবস্থার কথা তুলে ধরার চেষ্টা করলেও জন ভোগান্তি চরম পর্যায় ধারণ করায় ধীরে ধীরে আন্দোলন কঠোরতর হয়ে উঠছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
সাভারের নলাম এলাকার এই গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি প্রতিদিনের নিত্যপ্রয়োজনে ব্যবহার করেণ প্রায় কয়েক হাজার মানুষ। গণ বিশ্ববিদ্যালয়, গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, পি এইচ এ ভবন,গণস্বাস্থ্য ফারমাসিউটিক্যালস, মির্জা গোলাম হাফিজ কলেজ, আলহাজ্ব জাফর ব্যাপারি উচ্চ বিদ্যালয়, দরিদ্র শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষার স্কুল গণ বিদ্যাপীঠসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় দশ হাজার শিক্ষার্থী ও বেশ কয়েকটি শিল্পকারখানার কর্মকর্তা, কর্মচারী, রোগীসহ বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষের যাতায়াতের প্রধান সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত এই সড়কের সংস্কারের কোন উদ্যোগ না নেয়ায় জনভোগান্তি এখন অসহনীয় পর্যায়ে এসে ঠেকেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*