যুবলীগ নেতা শামীমের রাজত্বের অবসান!

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইংরেজী, শুক্রবার: উচ্চতায় ছোটখাটো। ৫ ফুটের সামান্য বেশি। মাথায় চুল কম। সাদামাটা গোছের প্রায়। কিন্তু নিরাপত্তা বেষ্টনী তার পুরো রাজকীয়। বিশাল দেহের রক্ষীরা তার পাহারায়। অর্ধডজন দেহরক্ষী সঙ্গী থেকে বদলে দিত তার চলার স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।
অস্ত্রসজ্জিত দেহরক্ষী নিয়ে তার চলাচল অনেকটাই কমান্ডো স্টাইলের। আগে-পিছে মোটরসাইকেল ও জিপে চড়া রক্ষীবাহিনীর পাহারায় নিকেতনে আসা-যাওয়া করতেন সাইরেন বাজিয়ে। থাকতো পুলিশের পাহারাও। যেন রাষ্ট্রীয় কোনো বড় মাপের ভিআইপি মুভমেট করছেন।


বলছিলাম, এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমের কথা। রাজধানীর সবুজবাগ, বাসাবো, মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রভাবশালী ঠিকাদার হিসেবে পরিচিত যুবলীগের এই নেতাকে শুক্রবার নিকেতনের অফিস থেকে সাত দেহরক্ষীসহ আটক করে র‌্যাব।
এদিন ভোর ৬টা থেকে সাদা পোশাকে শুরু হয় র‌্যাবের অভিযান। বিকেল সাড়ে ৪টায় অভিযান শেষে শামীমসহ ৮ জনকে আটক করার বিষয় জানায় র‌্যাব। অভিযানে ১ কোটি ৮০ লাখ নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া ১৬৫ কোটি টাকার ওপরে এফডিআর (স্থায়ী আমানত) পাওয়া যায়। যার মধ্যে তার মায়ের নামে ১৪০ কোটি ও ২৫ কোটি টাকা তার নামে। এ ছাড়া তার কাছে মার্কিন ডলার, মাদক ও আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া যায়।


নিকেতনের যে অফিস থেকে শামীম র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েন তার পুরোটাই আবাসিক এলাকা। আবাসিক ভবনগুলো প্রতিটিই ৬-৭ তলা, একটার সঙ্গে আরকেটা লাগুয়া। শুধু জি কে শামীমের ভবনটি (জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড) চার তলা। ভবনটি থেকে কিছু দূরেই রয়েছে মসজিদ। এই ভবনের অফিসে কখনও সকালে, কখনও দুপুরে এমনকি গভীর রাতেও আসতেন জি কে শামীম।
সকাল, দুপুর, বিকেল বা রাত যখনই শামীম নিকেতনে ঢুকতেন টের পেয়ে যেতেন আশপাশের সবাই। তার পাহারায় সবসময় তিনটি মটোরসাইকেলে ৬ জন দেহরক্ষী থাকতেন। শামীমের গাড়ির সঙ্গে থাকতো আরও দুটি কালো রঙের জিপ গাড়ি। সাইরেন বাজাতে বাজাতে রাস্তা দিয়ে গাড়িবহরসহ এগিয়ে যেতেন শামীম। তার গাড়ি গন্তব্যে (অফিসের সামনে) না পৌঁছানো পর্যন্ত রাস্তায় নামতে পারতো না অন্য কোনো গাড়ি। প্রভাবশালী এই ঠিকাদারের চলাচল সম্পর্কে এমনই তথ্য পাওয়া গেছে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে।


জি কে বি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড নামের ভবনটির পাশের এক ভবনের কেয়ারটেকার বলেন, ‘শামীম সাহেবের চালাচল ছিল পুরো রাজকীয়। তিনি যখন এখানে আসতেন, সবাই টের পেয়ে যেত। বিশাল দেহরক্ষী নিয়ে সাইরেন বাজিয়ে তিনি আসতেন। সবসময় তার সঙ্গে তিনটি মোটরসাইকেলে ৬ জন দেহরক্ষী থাকতেন। এ ছাড়া তার আগে-পিছে কালো রঙের আরও দুটি দামি জিপ গাড়ি থাকতো।’
তিনি বলেন, ‘শামীম সাহেবের গাড়ি যখন এখানে আসতো, কেউ রাস্তায় বের হতে পারতো না। অফিসের সামনে তার গাড়ি থামার সঙ্গে সঙ্গে অস্ত্রসহ দেহরক্ষীরা তার চারদিকে ঘিরে রাখতো। আর সিনেমার স্টাইলে গাড়ি থেকে নামতেন শামীম সাহেব। একবার তার গাড়ি আসার সময় আমাদের স্যারের গাড়ি গ্যারেজ থেকে অর্ধেক রাস্তায় চলে গিয়েছিল। কিন্তু তার দেহরক্ষীরা আমাদের সেই গাড়ি আবার গ্যারেজে ফিরিয়ে আনতে বাধ্য করেছিল। তার গাড়ি চলে যাওয়ার পর আমাদের গাড়ি বের হয়।’

জি কে শামীমের অফিসের পাশের আরেকটি বাড়ির কেয়ারটেকার ইসমাইল বলেন, ‘আমি ১০ বছর ধরে এখানে আছি। আগে ওই বাসাটা খান সাহেব নামের একজনের ছিল। বছর খানেক আগে খান সাহেবের কাছ থেকে শামীম সাহেব বাড়িটি কেনেন। শামীম সাহেব বাড়িটা কেনার পর সবসময় এই জায়গাটা জমজমাট থাকে। প্রতিদিনই তিনি এখানে আসেন গাড়িতে সাইরেন বাজিয়ে। দেহরক্ষীদের পাশাপাশি পুলিশের গাড়িও থাকতো। তার চলাচল দেখে মনে হতো সরকারের কোনো মস্তো বড় কেউ। রাত ২-৩টার সময়ও গুমগুম করে তার গাড়ির সাইরেন বাজতো।’
তিনি বলেন, ‘খান সাহেবের কাছ থেকে বাড়িটি কেনার পরপরই এমন স্টাইলে চলাচল করতেন শামীম সাহেব। তবে গত ২-৩ দিন ধরে তিন অনেকটাই শান্ত হয়ে গিয়েছিলেন। ফকিরাপুলের জুয়ার আসরে র‌্যাবের অভিযানের পর, আগের মতো গাড়িতে সাইরেন বাজিয়ে চলাচল করা বন্ধ করে দেন তিনি। গত দুই দিন অনেকটাই নীরবে এই অফিসে যাওয়া-আসা করেন শামীম সাহেব।’


মাসুম নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, ‘রাত ২-৩টার দিকেও শামীম সাহেব এই অফিসে আসতেন। গভীর রাতে তিনি যখন আসতেন তার গাড়ির আওয়াজে সবার ঘুম ভেঙে যেত। কিন্তু কারও কিছু বলার সাহস ছিল না। এমনকি নামাজের সময়ও তিনি একই স্টাইলে চলাচল করতেন। পাশেই মসজিদ থাকায় অনেকের নামাজের সমস্যা হতো। কিন্তু তাকে কিছু বলার সাহস এখানে কারও নেই। এই নিকেতনেই তার আরও চারটি বাড়ি আছে বলে আমরা শুনেছি।’


উল্লেখ্য, জি কে শামীম যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক বলে কথা লোকমুখে শোনা গেলেও সংগঠনটির শিক্ষা সম্পাদক মিজানুল ইসলাম মিজু বলছেন, শামীম যুবলীগের কেউ নন, তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*