মেডিকেল চেক-আপে অবহেলা নয়

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : সবার স্বাস্থ্যের ওপর নজর দিতে গিয়ে নিজেরটা অবহেলা করছেন না তো? ছেলে মেয়ের সামান্য হাঁচি হলেই ডাক্তার হাজির। স্বামী ডেন্টিস্টের অ্যাপয়েন্টমেmন্ট যাতে মিস না করেন তাঁর জন্যে অ্যালার্ম সেট করে রেখেছেন কিন্তু নিজের শরীর নিয়ে যত অনীহা। আবার ঘর সামলাচ্ছেন এবং অফিসের প্রেশার, কত কাজ সময় কই নিজের মেডিকেল চেক-আপ করানোর। কিন্তু শরীর তো আর মেশিন নয়, সে কেন মানবে? মাঝে মধ্যে বিকল তো হবেই। অনেকেই আছেন এমন যারা নিজের দেহকে অবহেলা করে থাকে। শারীরিক দুর্বলতাকে সামান্য সমস্যা ভেবে এড়িয়ে যায়। কিন্তু একটা কথা মনে রাখা উচিত যে সবকিছুকে অবহেলা করলেও শরীরকে অবহেলা করা মোটেও ঠিক কাজ নয়। তাই মাস কয়েক পর পর কিংবা বছরে এক বার অবশ্যই নিজের দেহের সুস্থতা সম্পর্কে জেনে নেয়া অতি উত্তম কাজ। সেজন্য আপনি কি করবেন সেটাই তো ভাবছেন? চিন্তা করবেন না, আপনার সুস্থতার কথা ভেবেই আমাদের আজকের এই লেখা….. ১। সবার আগে মেডিকেল চেক-আপের প্রয়োজনীয়তা মাথার মধ্যে গেঁথে নিন। বাড়ির বাকি সদস্যদের সঙ্গে নিজের চেক-আপটাকেও রুটিনের অন্তর্ভুক্ত করুন। চেক-আপ ছুটির দিনে রাখতে চেষ্টা করবেন যাতে বাড়ির সবাই উপস্থিত থাকতে পারেন।
২। চেক-আপের দিন কোনো অ্যাপয়েন্টমেন্ট রাখবেন না। খুব জরুরি কাজ থাকলেও মাঝখানে সময় বের করে চেক-আপটা করিয়ে নেবেন। প্রয়োজন পড়লে ফ্যামিলী ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে তার বাসায় গিয়ে চেক-আপ করে আসতে পারেন।

৩। ডাক্তার যা পরামর্শ দেবেন তা মেনে চলুন। কোনো টেস্ট দিলে তা অযথা মনে করে বসে থাকবেন না। পাশাপাশি নিজেও ফিটনেস নিয়ম মেনে চলুন। নিয়মিত এক্সারসাইজ এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে আপনার চেক-আপের ঝামেলা নিজে থেকেই কমে আসবে।
৪। চেক-আপের রিপোর্টকে অবহেলা করবেন না। ডাক্তার যদি বিশেষ কোনো সতর্কতা অবলম্বন করতে বলেন তা অবশ্যই মেনে চলুন। কোনো ওষুধ খেতে হলে নির্ধারিত সময়েই খান।
৫। নিজের শরীর খারাপ হলে ডাক্তার দেখাতে ভুলবেন না। বিশেষ কোনো কিছু হয়নি মনে করে রোগ পুষে রাখবেন না। বাড়ির সকলের পাশাপাশি নিজের শরীরের প্রতিও নজর রাখুন। সূত্র : শীর্ষ নিউজ ডটকম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*