মা বাচ্চাকে সিঁড়িতে ছুড়ে ফেললেন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: ২৭ জানুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার: ঝগড়ার সূত্রপাত সম্পত্তির ভাগাভাগি নিয়ে। শাশুড়ির সঙ্গে ঝগড়ার জের ধরে একপর্যায়ে নিজের দুই বছর বয়সী সন্তানকে ছুড়ে ফেলে দিলেন মা। আর ঘরের সিসিটিভিতে ধরা পড়লো সেই নির্মম দৃশ্য। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে। শুক্রবার এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সনু গুপ্ত(২৬) নামে ঐ নারীর বিরুদ্ধে শিশু হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনেছেন তার ব্যবসায়ী স্বামী নিতিন গুপ্ত।
পুলিশ জানায়, সিড়িতে ছুড়ে ফেলা শিশুটির নাম অংশু। উপর থেকে পড়ে মাথায় এবং মুখে আঘাত পাওয়ায় তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস (এআইআইএমএস) হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে।
নিতিন জানান, তার স্ত্রীর অপরাধের দৃশ্য দুটি ক্যামেরায় ধারণ করা হয়েছে। তাদের দিল্লির দক্ষিণ-পূর্বের বাসায় ক্যামেরা লাগানো হয়েছে সনুর কথিত বর্বর আচরণের প্রমাণ রাখার জন্য। ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার কিন্তু তার পরিবার মঙ্গলবার থানায় অভিযোগ করে।
ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, সনু গুপ্তা চিৎকার-চেঁচামেচি করছেন। ক্রমেই তিনি উত্তেজিত হচ্ছিলেন। এরপর বিছানায় থাকা শিশু সন্তানকে ঘুম থেকে উঠিয়ে দরজার দিকে চলে যান। চিৎকার করতে করতেই তিনি শিশুটিকে সিঁড়ির মধ্যে ছুড়ে ফেলে দেন। পরে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।
নিতিন গুপ্ত একটি কসমেটিকসের দোকানের মালিক। পাঁচ বছর আগে সনুর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। নিতিন ও তার মা-বাবার অভিযোগ, সনু প্রায়ই উত্তেজিত হয়ে উন্মাদের মতো আচরণ করতো। গত মঙ্গলবার মি: গুপ্ত থানায় ফোন করে জানান, তার স্ত্রী দোতলা অ্যাপার্টমেন্টের সিঁড়ি থেকে তার শিশু সন্তানকে ফেলে দিয়েছেন।
নিতিনের মা দাবি করেন, ‘আমরা কথা বলছিলাম। সে বিষয়সম্পত্তি নিয়ে ঝগড়া শুরু করে দেয়। একপর্যায়ে সে আমার নাতিকে কোলে নিয়ে বলে, ‘আমি ওকে মেরে ফেলব, আর আপনাদের সামনেই সেটা করবো।’ বলতে বলতে তিনি শিশুটিকে দোতলা থেকে নিচতলায় ফেলে দেন।
নিতিনের মা মামলেশ গুপ্ত আরও অভিযোগ করেন, তার পুত্রবধূ এর আগেও তার গায়ে হাত তুলেছেন। ‘আমি ঘরে সিসিটিভি লাগিয়েছি কারণ যাতে করে তার হিংস্র আচরণ প্রমাণ হিসেবে দেখাতে পারি।’ পুলিশ জানিয়েছে, তারা ঐ পরিবারের অভিযোগ যাচাই করে দেখছেন। ইতিমধ্যে সনু গুপ্তের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা নিয়েছে পুলিশ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: