মাদারীপুরে এ বছর পেঁপের বাম্পার ফলন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ডিসেম্বর ২১, ২০১৬, বুধবার: মাদারীপুরে এ বছর পেঁপের বাম্পার ফলন হয়েছে। স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে এ পেঁপে বিক্রি হচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। এতে ন্যায্য দাম পেয়ে লাভবান হওয়ার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হয়েছেন জেলার চাষিরা। কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও কৃষি বিভাগের নজরদারিতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি উৎপাদন হয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।
গত সেপ্টেম্বর মাসে মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভার দক্ষিণ রাজদী এলাকায় পেঁপের চাষাবাদ শুরু করেন কবির হোসেন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় বসত বাড়ির আঙ্গিনায় পেঁপে চাষ করেন তিনি। মাত্র ৮ মাসের মাথায় গাছে প্রচুর ফলন হয়েছে। কাঁচা পাকা ফলের ভারে মাটিতে নুইয়ে পড়া পেঁপের দৃশ্য মুগ্ধ করার মতো। শুধু কবির হোসেনই নয়। তার মত জেলার দুই শতাধিক কৃষক এবার পেঁপের চাষ করেছেন।
পেঁপেচাষি কবির হোসেন জানান, ৪ হেক্টর জমিতে পেঁপে চাষবাদ করতে ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। এরপর পেঁপে বিক্রি করে ২ লাখ টাকা বেশি লাভ হয়েছে। ভবিষ্যতে পেঁপে চাষ ধরে রাখতে চাই। অন্য সবজির থেকে চাষাবাদে পেঁপে চাষাবাদে বেশি লাভজনক।
কৃষক মনির আকন বলেন, এক একটি পেঁপে ৭ থেকে ৮ কেজি হয়েছে। পেঁপে বিক্রি করে সংসার ভালই চলছে। অন্য ফসলের চেয়ে পেঁপে চাষাবাদে লাভজনক। এই ধারা ভবিষ্যতে ধরে রাখতে চাই।
শহরের পুরান বাজারের পেঁপে বিক্রেতা নজরুল ফকির বলেন, এবারে পেঁপের বাম্পার ফলন হয়েছে। মাদারীপুর থেকে আমরা পেঁপে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করি থাকি। এতে কৃষকদের পাশাপাশি আমরা বিক্রেতারাও লাভবান হচ্ছি।
কালকিনির কৃষি কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আধুনিক প্রযুক্তিতে কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও কৃষি বিভাগের নজরদারিতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি উৎপাদন হয়েছে। জেলায় এবার ৩শ হেক্টর জমিতে পেঁপের চাষাবাদ করা হয়েছে। যা গতবারের চেয়ে প্রায় দ্বিগুন বেশি। আর প্রতি কেজি কাঁচা পেঁপে খুচরা বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকা করে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: