মহাসড়কে টোল আদায়ের প্রক্রিয়া চলছে: সেতুমন্ত্রী

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইংরেজী, বুধবার: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘মহাসড়কে টোল আদায়ের প্রক্রিয়া চলছে। বিশ্বের সব দেশেই এই ব্যবস্থা আছে, তাহলে বাংলাদেশে কেন হবে না। সড়ক-মহাসড়কে গর্ত সৃষ্টি হয়, নষ্ট হয়— এগুলো ঠিক করতে টাকা লাগে।’
বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় তিনি এসব কথা বলেন।


টোল আদায় হলে এর প্রভাব জনগণের ওপর পড়বে কিনা, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘টোল আরোপের ফলে জনগণের কোনও নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। টোল আদায় হলে এই টাকা দিয়ে রাস্তাঘাট ঠিক করা হবে। এর সুফল জনগণ পাবে। আগে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসতে লাগতো সাত ঘণ্টা। এখন রাস্তাঘাট ভালো থাকায় তিন ঘণ্টায় আসা যায়।’
কোন কোন মহাসড়কে টোল বসবে, এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘চার লেনের ওপরে মহাসড়কগুলোতে টোল বসবে। তবে জেলা সড়কগুলো টোলের আওতায় আসবে না।’
আসলেই কি মহাসড়কে টোল আদায়ের বিষয়টি চূড়ান্ত হচ্ছে, সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ। তার নির্দেশ হালকা করে দেখার কোনও সুযোগ নেই। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে টোল নির্ধারণ করা হবে।’
পদ্মা সেতুতে টোল আদার বিষয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী বছরের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর পূর্ণ কাজ শেষ হবে। এটি হলে এর কয়েক মাস পর সেটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে।’
বিএনপি’র অভিযোগ, পদ্মা সেতু নিয়ে সরকার লুটতরাজ শুরু করছে, এর জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘চার লেনের রাস্তাঘাট করার অভিজ্ঞতা বিএনপির নেই। তারা কোনও ব্রিজও করেনি। সমালোচনার জন্যই তারা সমালোচনা করেন।’

আসামে অবৈধ নাগরিকদের তালিকা প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আসামে গিয়ে বিজেপির প্রধান কী বললো, তার চেয়ে বড় কথা হলো ভারত বাংলাদেশকে কী বললো। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর বাংলাদেশে এসেছিলেন। তিনি বলে গেছেন, আসামের বিষয়ে বাংলাদেশের ক্ষতির কোনও আশঙ্কা নাই।’
রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচন নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এই আসনটি এরশাদের জাতীয় পার্টির। আমরা জোটগতভাবে নির্বাচন করেছিলাম। ওই নির্বাচনে এরশাদ বিজয়ী হয়েছিলেন। এখন যদি অফিসিয়ালি তারা ওই আসনটি চায়, তাহলে বাস্তবতা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে সেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আছে। আমরা সেখানে নৌকা নিয়ে মাঠে আছি। ছাড় দেওয়ার বিষয় হলে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের প্রধান শেখ হাসিনা সে সিদ্ধান্ত দেবেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*