মমতার মুখের ভালবাসা পেলেও অন্তরের ভালবাসা কী মিলবে?

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে Mamataএসে বাংলাদেশের প্রতি তার ভালবাসা, আন্তরিকতা বন্ধুত্বের কথা বলেছেন। ভারত সরকারের থেকে সবচেয়ে বড় চাওয়া তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে তার ওপর ভরসা রাখতে বলেছেন। বলা চলে সফররত মমতা মুখের ভালবাসার কোন কমতি দেখা যায়নি। আজ দেশে ফিরে যাবেন তিনি। বহু প্রত্যাশীত তিস্তা চুক্তি আপাতত প্রতীক্ষার বিষয় হয়েই রয়ে যাচ্ছে। কেন না চুক্তি হবে দিল্লির সঙ্গে। মমতা বাধা না দিলে হয়ত অচিরেই তিস্তা চুক্তির হতে পারে। ২০১১ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং বাংলাদেশ সফরে এসে তিস্তা চুক্তির ব্যাপরে তার আন্তরিকতার কথা বলেছিলেন। কিন্তু বড় বাধা মমতা সেটিও তিনি জানিয়েছিলেন। ভারতের গণমাধ্যমও এ ধরনের খবর প্রকাশ করেছে। কেননা তিস্তা নদী ভারতের পশ্চমবঙ্গের ওপর দিয়ে প্রবাহিত। মমতার সম্মতি বড় বিষয়। শেখ হাসিনার সরকার ভারতের সঙ্গে গঙ্গা চুক্তি করেছে। অভিযোগ রয়েছে চুক্তি অনুযায়ী পানি পাচ্ছে না বাংলাদেশ। চুক্তির সময় থেকে বর্তমানে গঙ্গার পানির প্রবাহ অনেক কমেছে। ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পোষাক নিলামে বিক্রি চলছে। সব অর্থ ব্যায় করা হবে গঙ্গার পানি শোধনাগারের কাছে। তিস্তার পানির প্রবাহও আগের মত নেই। তবুও একটি চুক্তি হলে বাংলাদেশ বর্তমানের চেয়ে অনেক বেশি পানি পাবে বলে মনে করছেন দেশের পানি গবেষণাবিদরা। পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে আরও কিছু অমিমাংসিত বিষয় সুরহা প্রয়োজন। কিন্তু বর্তমানে বড় সমস্যা তিস্তার পানি। আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতার মন্তব্য হল, গঙ্গার মত তিস্তার চুক্তিও তারা করবে। অতীতে যা আর কোন সরকার করেনি। এখন কেবল মমতার অন্তরের ভালবাসার বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশের প্রহর গোনা। সূত্র : আমাদের সময়.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*