বৃষ্টি হতে পারে নতুন বছরের শুরুতে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার: মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং তা দেশের কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে একথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। পূর্বাভাসে আরো বলা হয়েছে, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। আবাহাওয়া অফিস বলেছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ দক্ষিণ আন্দামান সাগর এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। উপ-মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বিহার এবং তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আজ সকাল ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯২ শতাংশ। এদিকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থা সম্পর্কে বলা হয়েছে, দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টিপাত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
নতুন বছরের শুরুতে বৃষ্টি
বৃষ্টি হতে পারে নতুন বছরের শুরুতে। বর্তমানে আন্দামান সাগর ও এর পাশের বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপ ঘুরছে। এটি গত ২৫ ডিসেম্বর সৃষ্টি হলেও এর অগ্রগতি খুবই মন্থর। ২৫ ডিসেম্বর লঘুচাপটি আন্দামানের যে স্থানে সৃষ্টি হয়েছে গতকাল বুধবার প্রায় সেখানেই রয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, লঘুচাপের প্রভাবে এ সপ্তাহের শেষ দিকে অর্থাৎ নতুন বছরের শুরুতেই বৃষ্টি হতে পারে।
আবহাওয়া অফিসের মাসব্যাপী পূর্বাভাসে চলতি ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে একটি মৃদু অথবা মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে কিন্তু চলতি মাসের আর তিন দিন অবশিষ্ট থাকলেও শৈত্য প্রবাহের লক্ষ্মণ নেই। তবে তাপমাত্রা ডিসেম্বরের প্রথম দিকে ধারাবাহিকভাবে হ্রাস পেয়ে আসছে। যদিও গতকালই প্রথমবারের মতো দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমেছে। আজ বৃহস্পতিবার রাত ও দিনের তাপমাত্রা আরো কিছুটা হ্রাস পেতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস থেকে জানানো হয়েছে। সামনের আরো কমপক্ষে তিন দিন তাপমাত্রা হ্রাস পেতে থাকবে।
আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বৃষ্টি হলেও পুরো দেশে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এ সপ্তাহের শেষ দিকে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল দিয়ে শুরু হতে পারে বৃষ্টি। এর বাইরে দেশের অন্যান্য অঞ্চলে বৃষ্টিনির্ভর করবে লঘুচাপটি কতটা শক্তিশালী হচ্ছে এর ওপর।
গতকাল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল চুয়াডাঙ্গা শহরে ১০.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ ছিল টেকনাফে ২৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমেছিল ১৬.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের অঞ্চলগুলোতে তাপমাত্রা তুলনামূলক কম ছিল। সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা ছিল উপকূলীয় অঞ্চল চট্টগ্রাম, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের মংলা ও খুলনা শহরে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: