বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবিতে রংপুরে বিড়ি শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২২ মে: আজ ২২ মে সকাল ১১ টায় বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবিতে রংপুরের বিক্ষুব্ধ বিড়ি শ্রমিকদের পক্ষ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। মিছিলটি রংপুর শহরের পায়রা চত্বর থেকে শুরু হয়ে প্রেসক্লাবের সামনে গিয়ে শেষ হয়।Picture 1 মিছিল শেষে বিড়ি শ্রমিকরা সেখানে একটি সমাবেশের আয়োজন করে। বিড়ি শ্রমিকরা চরম অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাজ করে। অন্য যেকোন কাজের তুলনায় মজুরিও কম। এক হাজার বিড়ির শলাকা তৈরি করে পাওয়া যায় ২১-২৭ টাকা। একজন শ্রমিক একদিনে গড়ে ৫ হাজার বিড়ির শলাকা উৎপাদন করতে পারে। সুতরাং বিড়ি শ্রমিকদের দৈনিক গড় আয় ১৩৫ টাকার বেশি নয়। অন্যদিকে সপ্তাহে তিন চার দিনের বেশি কাজও থাকে না। বিড়ি শিল্পের কাজে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিও অন্যান্য কাজ থেকে অনেক বেশি। বিড়ি কারখানার অভ্যন্তরে তামাকের গুঁড়ার কারণে ঠিকমতো শ্বাস নেওয়া সম্ভব হয় না। যারা বিড়ি শিল্পে কাজ করে তারা সারা বছরই নানা ধরনের অসুখে ভোগে। আবার বিড়ি কারখানায় কাজ করলে একজনের আয়ে সংসার চালানো প্রায় অসম্ভব। তাই অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পরিবারের শিশু, নারীসহ সকলকেই বিড়ি তৈরির কাজে সম্পৃক্ত হতে হয়। ফলে একদিকে যেমন সন্তানদের লেখাপড়া ব্যাহত হয়, Picture 2অন্যদিকে সেই শিশুদের বড় হয়ে বিড়ি শ্রমিক হিসেবেই জীবন অতিবাহিত করতে হয় ফলে তাদের দারিদ্র অবস্থারও কোন পরিবর্তন হয় না। এসব বাস্তবতার প্রেক্ষিতে বিক্ষুব্ধ বিড়ি শ্রমিকদের পক্ষ থেকে বিক্ষোভ সমাবেশে মোরশেদুল আলম, মানজু, কেসোনা এবং চাঁন মিয়া বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন যার মধ্যে রয়েছে: বিড়ি শ্রমিকদের বিকল্প কর্মসংস্থানের কথা বিবেচনা করে বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে শিল্প-কারখানা স্থাপন করা। এসমস্ত কারখানায় বিড়ি শ্রমিকদের অগ্রধিকারভিত্তিতে চাকরি প্রদান করা। বিড়ির কাজ ছাড়তে সাময়িক আর্থিক সহায়তা ও বিনামূল্যে দক্ষতা উন্নয়ন সহয়তা (যেমন বিনামূল্যে বিভিন্ন কারিগরি কাজের প্রশিক্ষণ) প্রদান করা। বিদেশে শ্রমিক প্রেরণের ক্ষেত্রে এ অঞ্চলের শ্রমিকদের প্রাধান্য দেওয়া। বিড়িশিল্প মালিকদের বিকল্প শিল্প-কারখানা স্থাপনে সরকার কর্তৃক প্রণোদনাসহ বিভিন্ন উৎসাহমূলক নীতি গ্রহণ করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*