বিএনপি ও শহীদ জিয়াকে নিয়ে হাছান মাহমুদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত: আবু সুফিয়ান

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৮ জুন ২০১৯, শনিবার: বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াউর রহমান ও বিএনপি নেতাদের নিয়ে আওয়ামীলীগ নেতা তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেছেন, জিয়াউর রহমান সেইদিন কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। কারণ সেই সময় আওয়ামীলীগ নেতারা ট্রেনিংয়ের নামে ভারতে গিয়ে নিজেদের আত্মরক্ষায় ব্যস্ত ছিলেন। সেদিন দেশের সাধারণ মানুষ জিয়াউর রহমানের ডাকে উজ্জ্বীবিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। বিএনপি ও শহীদ জিয়াকে নিয়ে হাছান মাহমুদের বক্তব্য শিষ্টাচার বহির্ভূত। তিনি আজ ৮ জুন শনিবার বিকালে ৬ নং পূর্বষোলশহর ওয়ার্ড় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে ওমর আলী মাতব্বর মহল্লার বাদশা চেয়ারম্যান ঘাটে এক ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিতির বক্তব্যে এ কথা বলেন। আবু সুফিয়ান বলেন, বিএনপি বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল। জনগণের ভোটে ৩ বার বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্টিত হয়েছিল। বিএনপির নেতারা রাজনৈতিক মাঠের কাক নয়, তারা দেশপ্রেমিক ও পরিচ্ছন্ন নেতা হিসাবে পরিচিত। যার কারণে তথ্যমন্ত্রী তার রুটিন মাফিক বিএনপির বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করার কোন ইস্যু না পেয়ে বিএনপির নেতাদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করছেন। যা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত। দেশবাসী জানেন, হাছান মাহমুদ সারাদিন বিএনপির বিরুদ্ধে কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করেন।
তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে আওয়ামীলীগ সরকার প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে কারাগারে আটকে রেখেছেন। তত্ত্ববাধয়ক সরকারের সময় বেগম খালেদা জিয়া ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল। কিন্তু খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে শেখ হাসিনা সেই সময়ের মামলায় খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিলেও নিজের মামলাগুলো প্রত্যাহার করে সাধু সাজার চেষ্টা করছেন। তিনি অবিলম্বে ড. হাছান মাহমুদের কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানান।
ওয়ার্ড় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক কাউন্সিলর হাসান লিটনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি সাবেক কাউন্সিলর মাহবুবুল আলম, সাবেক কাউন্সিলর নাজিম উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সম্পাদক ইসকান্দার মির্জা, মনজুর আলম মন্জু, আনোয়ার হোসেন লিপু, বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোস্তাক আহমদ খান, বোয়ালখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি ও মেয়র হাজী আবুল কালাম আবু, মহানগর বিএনপির মৎস্যবিষয়ক সম্পাদক মো. বখতেয়ার, সহ আপ্যায়ন সম্পাদক আবদুল আজিজ, চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহেদ। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপির সদস্য মনজুর আলম মঞ্জু, মোহরা ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি জানে আলম জিকু, বিএনপি নেতা মসিউদ্দৌলা জাহাঙ্গির, হাজী নাছির উদ্দিন, দিদারুল আলম, আইয়ুব আলী, আবু বক্কর সওদাগর, দিদারুল আলম হিরামন, ইলিয়াছ আলী, আবু বক্কর, নগর যুবদলের সহ সভাপতি ম, হামিদ, সিঃ যুগ্ম সম্পাদক মোশারফ হোসেন, যুবদল নেতা গুলজার হোসেন, এস এম ফারুক, সাইদুল ইসলাম, মনছুর আলম, আকতার হোসেন, মো. হোসেন, দিদারুল আলম, মো. এসকান্দর, এস এম শফিউল্লাহ মামুন, নাছির উদ্দিন, আবু বক্কর বাবু, জাবেদ মাসুদ, মো. জাবেদ, মো. সেলিম, মো. রিদওয়ান, মো. আবদুর রশিদ, মোরশেদ কামাল প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*