বিএনপিকে হারাতে ঐক্যবদ্ধ আ.লীগ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৭ ডিসেম্বর: বিএনপি-জামায়াতের ‘ঘাঁটি’ হিসেবে পরিচিত চট্টগ্রামের সাতকানিয়া। সেখানে বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থীকে হারাতে ‘বিবেদ’ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। গণসংযোগে নেমেছেন কেন্দ্রীয় ও জেলা পর্যায়ের নেতারাও।ec
সাতকানিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনজন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ জোবায়ের, বিএনপির রফিকুল আলম ও জাতীয় পার্টির (এরশাদ) মো. ইউসুপ চৌধুরী।
২০০৫ সালে সাতকানিয়া পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে জামায়াত-সমর্থিত প্রার্থীকে পরাজিত করে জয়লাভ করেন বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থী মোহাম্মদুর রহমান। সে সময় আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও জামায়াত-সমর্থিত প্রার্থীকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন মোহাম্মদুর রহমান। সাতকানিয়া পৌরসভার এটি তৃতীয় নির্বাচন।
দলীয় সূত্র জানায়, সর্বশেষ উপজেলা সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সাতকানিয়ায় আওয়ামী লীগে বিরোধ দেখা দেয়। দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক আ ম ম মিনহাজুর রহমান একপক্ষের বিরোধিতার কারণে সাধারণ সম্পাদক হতে পারেননি। এরপর তাঁর সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরোধ দেখা দেয়। সর্বশেষ মেয়র পদপ্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে বিরোধের মাত্রা বেড়ে যায়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মোতালেব ও সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন চৌধুরী সদ্য আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া বর্তমান মেয়র মোহাম্মদুর রহমানের পক্ষ নিলে বিরোধের বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে আসে।
দলীয় সূত্রমতে, দলীয় মনোনয়নকে কেন্দ্র করে মোহাম্মদ জোবায়ের, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বশির আহমদ চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক ফয়েজ আহমদ লিটন ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিনের সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়রের বিরোধ দেখা দেয়।
নির্বাচনী প্রচারণার প্রথম দিকে দলের প্রার্থীর পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের সব নেতাকে দেখা যায়নি। তবে কয়েক দিন ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মোতালেব, সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন চৌধুরী, বর্তমান মেয়র মোহাম্মদুর রহমানসহ দলীয় নেতা-কর্মীরা মোহাম্মদ জোবায়েরকে সঙ্গে নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি মাঈনুদ্দিন হাছান চৌধুরী এবং দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দীন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানও গণসংযোগ করছেন।
গত বুধবার দলীয় প্রার্থীকে নিয়ে গণসংযোগ ও পথসভা করেন আমিনুল ইসলাম। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, পৌরসভার মেয়র সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
কুতুব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বড় সংগঠন হিসেবে দলের নেতাদের মধ্যে কিছুটা মতবিরোধ থাকতেই পারে। তবে দলের প্রতীকের বিরুদ্ধে কারও কোনো বিরোধ থাকতে পারে না। তাই দলের সব নেতা-কর্মী নৌকা প্রতীকের পক্ষে দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোজাম্মেল হক বলেন, সবকিছু ভুলে আওয়ামী লীগের সব নেতা-কর্মী ও সমর্থক বিএনপির প্রার্থীকে হারাতে ঐক্যবদ্ধভাবে ভোর থেকে রাত পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: