বাবার অনুপস্থিতিতে কোন অপশক্তি যেন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠতে না পারে: ব্যারিষ্টার নওফেল

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার: চট্টগ্রামের গণ মানুষের নেতা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আমার বাবাকে দেখেছি, প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী, স্বাধীণতা বিরোধী গোষ্ঠী এবং জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার ছিলেন। সংগঠনের নিয়মিত কর্মসূচির বাইরে নিজ উদ্যোগে তিনি কিছু কর্মসূচী পালন করতেন। যেন এ চট্টগ্রামে কোন অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠতে না পারে। এ বিষয়ে আমাদের সর্তত থাকতে হবে “বাবার অনুপস্থিতিতে যেন কোন অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠতে না পারে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামে এসে আমাকে বলেছেন তোমার বাবা চট্টগ্রাম পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখতেন। আমি তোমার বাবা স্বপ্ন পূরণ করার জন্য চট্টগ্রামে কাজ করছি। প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামে হাজার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। তিনি বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চল পাল্টে দেবেন। সাগর আমাদের সম্পদ। এ সাগর আমাদের ভাগ্য বদলে দেবে, বাকলিয়াবাসীল জলাবদ্ধতা নিয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, বেগম জিয়ার আমলে কর্ণফুলী নদীর উপর ব্রিজ করতে গিয়ে নদীর নব্যতা হারিয়ে গেছে। আমার বাবা এ ব্রিজের বিরোধীতা করেছিলেন। প্রকৃত দেশপ্রেমিক যে কোন রাজনৈতিক নেতাও আমার বাবার মতোই, ব্রিজ নির্মাণের বিরোধীতা করতো। শেখ হাসিনার সাথে এখানেই অন্যদের পার্থক্য। উনি ব্রিজ নির্মাণ না করে ট্যানেল নির্মাণ করেছেন। কর্ণফুলী ব্রিজ না করে যদি তখন ট্যানেল নির্মাণ করতেন এখন বাকলিয়াবাসীকে হাটু পানির নিচে থাকতে হতো না। নগরীর ১৯নং দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এবং তার অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক মেয়র আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। ওয়ার্ড আওয়মী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল আজিম নুরুর সভাপতিত্বে নগর যুবলীগের সাবেক শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মো: বকতেয়ার ফারুক ও যুবনেতা আলহাজ্ব জাবেদ হোসেন এর যৌথ পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নগর আওয়ামী লীগ সহ দপ্তর সম্পাদক সাবেক কাউন্সিলর মো: শহিদুল আলম, নগর আওয়ামী লীগ সদস্য নুরুল আলম শান্তি। প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগ যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ। স্মরণসভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন কোতোয়ালী থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব এস এম মহিউদ্দিন মহিম, নগর যুবলীগ সদস্য এস এম সাঈদ সুমন, শেখ নাছির আহমেদ, দেলোয়ার হোসেন দেলু, হোসেন সরওয়ার্দী, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি সেকান্দর আলম, মো: কামাল উদ্দিন, আনিসুর রহমান আনিস,মো: ইয়াছিন, ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ আলম, যুগ্ম সম্পাদক একরাম রানা, এমদাদুল হক রায়হান, মো: সালাউদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা আজমির শাহ, আবদুল মুকিত, মো: সাদিব, ওমর ফারুক ফয়সাল, রায়হান উদ্দিন। এসময় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ১৮নং ওয়ার্ড যুবলীগ আহ্বায়ক মো: সেলিম উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক মো: কামরুল ইসলাম, মুজিবুর রহমান মুজিব, ১৯নং ওয়ার্ড যুবলীগ সহ সভাপতি মো: আজিম, এম আর ইয়াসিন, হাসান মুরাদ, আতাউল করিম রাজন, লিটন দাশ, জাহাঙ্গীর আলম, মো: সালাউদ্দিন প্রমুখ। প্রধান বক্তার বক্তব্যে ফরিদ মাহমুদ বলেন, আমাদেরকে মহিউদ্দিন ভাইয়ের অসমাপ্ত কাজ এগিয়ে নিতে হবে। তিনি চট্টগ্রাম ও রাজনীতির জন্য একটা দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন। আমাদেরকে সে পথ অনুসরণ করতে হবে। স্মরণ সভার শুরুতে কোরানখানী ও পরে মিলাদ মাহফিল এবং বিশেষ মোনাজাত করা হয়। সবশেষে সকলের মাঝে তবারুক বিতরণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*