বাংলাদেশ মুখোমুখি হচ্ছে ভারতের

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১২ জুন ২০১৭, সোমবার: মাঝখানে আর ২ দিন বাকী। তারপরেই ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে উত্তেজনাকর ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির মঞ্চে।
মোটামুটি নিশ্চিত যে বাংলাদেশের মুখোমুখি হচ্ছে ভারত। একটা সময় ছিল যখন ক্রিকেটের উত্তেজনা বলতে বোঝাত ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ। কিন্তু সেই দিন আর নেই। রাজনৈতিক কারণে দুই দেশের মুখ দেখাদেখি বন্ধ। আইসিসির কোনো আসরে দুই দেশের দেখা হলে বলতে গেলে একপেশে খেলায় ম্যাচ জিতে নেয় ভারত। কিন্তু গত ২০১৫ বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের হিসেবই পাল্টে গেছে।
গত বিশ্বকাপের সেই বিতর্কিত কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বাংলাদেশ-ভারত সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভের উদগীরণ হয়ে আসছে। ঐ ম্যাচে অন্তত দুটি সুস্পষ্ট ভুল সিদ্ধান্তের শিকার হয়েছিল বাংলাদেশ। হয়তো পরাক্রমশালী ভারতের কাছে হারত বাংলাদেশ, কিন্তু ক্রিকেট আইনের এমন করুণ অপব্যবহার মেনে নিতে পারেনি কেউ। এমনকী ভারতীয় সাবেক ক্রিকেটাররা পর্যন্ত সমালোচনা করেন আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের। এরপর বাংলাদেশ সফরে এসে ওয়ানডে সিরিজ হেরে বসে ভারত। মধুর প্রতিশোধ নেয় মাশরাফি বাহিনী।
এবার আরেকটি আইসিসি ইভেন্টে মুখোমুখি দুই দল। যে জিতবে সেই যাবে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতের দিকে এই সম্ভাবনা বেশিরভাগটাই হেলে থাকবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ব্যাটিং-বোলিং সব সেক্টরেই মহাপরাক্রমশালী ভারত। তাদের বিপক্ষে কিছু করে দেখাতে হলে মাশরাফি বাহিনীকে সামর্থের সেরাটা উজার করে দিতে হবে। তবে এই ভারতকেই কিন্তু নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে হারিয়ছিল দুর্বল শ্রীলঙ্কা। টাইগাররা ওই ম্যাচটি থেকে অনুপ্রেরণা নিতে পারে। অনুপ্রেরণা নিতে পারে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়ের ম্যাচটি থেকে।
এই ম্যাচকে ঘিরে দুই দেশের সমর্থকরা গতকাল থেকেই সোশ্যাল সাইটে লড়াইয়ে নেমেছেন। চলছে কথার যুদ্ধ। যুক্তি তর্কের পালা। বেশিরভাগ সমর্থকরাই আবার ভদ্রতার সীমাও লংঘন করছেন। যা বাংলাদেশ সম্পর্কে ভিনদেশীদের ধারণা খারাপ করে দিচ্ছে। টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মুর্তজা একটা কথা বলে থাকেন, দিনশেষে ক্রিকেট শুধুমাত্র একটা খেলা। এটা একটা জাতির জীবন-মরণ কিংবা সবকিছু হতে পারে না।

Leave a Reply

%d bloggers like this: