বাংলাদেশকে সমীহ ওয়াকারের

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ক্রিকেট ঐতিহ্য কিংবা অভিজ্ঞতায় দুই দেশের বিস্তর ফারাকwaker থাকলেও আসন্ন সফরে বাংলাদেশের প্রতি সমীহের কমতি নেই ওয়াকার ইউনুসের। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নিজেদের সক্ষমতার পুরো প্রমাণ দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন এই পাকিস্তান কোচ। পাকিস্তানের মোহাম্মদ হাফিজ, ফাওয়াদ আলম, সরফরাজ আহমেদের পর এবার ওয়াকারও জানালেন বাংলাদেশকে নিয়ে তার বাড়তি সতর্কতার কথা। ১৩ এপ্রিল বাংলাদেশে আসার আগে তারুণ্যনির্ভর পাকিস্তান দলটি এই মুহূর্তে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে অনুশীলনে সময় কাটাচ্ছে। গতকাল অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপে বাংলাদেশের নৈপুণ্যের প্রশংসা করেন ওয়াকার। আসন্ন সিরিজে দলটি পাকিস্তানের জন্য সত্যিকারের হুমকি হয়ে আবির্ভূত হতে পারেন বলে মনে করেন তিনি। বাংলাদেশকে খাট করে দেখার কোন অবকাশ নেই জানিয়ে সাবেক তারকা পেসার ওয়াকার বলেন, ‘সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশ দারুণ ক্রিকেট খেলছে এবং আমরা তাদের সহজ প্রতিপক্ষ ভাবছি না।’ বাংলাদেশ সফরের মধ্য দিয়েই বিশ্বকাপের পর ফের মাঠে নামবে পাকিস্তান। তাই ওয়াকারের চোখে সিরিজটি পাচ্ছে বাড়তি গুরুত্ব, ‘আমি আশাবাদী যে পাকিস্তান ভালো করবে।’ ভঙ্গুর ব্যাটিং লাইন-আপ বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের বড় উদ্বেগের কারণ ছিলো। তাই বাংলাদেশ সফরের আগে দলের ব্যাটিংয়ে শক্তি বাড়ানোর কাজ চলছে। তবে বিশ্বকাপে খুব ভাল কিছু দেখাতে না পারলেও নিজেদের বোলিং আক্রমণ নিয়ে আত্মবিশ্বাসী ওয়াকার, ‘বিশ্বকাপে আমাদের বোলাররা প্রশংসনীয় দায়িত্ব দেখিয়েছে। আমরা যেসব বোলারদের নিয়েছিলাম তারা সবাই দুর্দান্ত খেলেছে।’ সাঈদ আজমল ‘অবৈধ’ অ্যাকশনের ত্রুটি কাটিয়ে ফেরায় দলের বোলিং আক্রমণের শক্তি ঢের বেড়েছে। এই তারকা স্পিনারের ফেরার লড়াইয়ের প্রশংসা করে ওয়াকার বলেন, ‘গত আট মাস যাবৎ কঠোর পরিশ্রম করায় অবশ্যই আমাদের সাঈদ আজমলের প্রশংসা করা উচিত। অনুশীলন সেশন এবং ম্যাচ খেলার মধ্যে অনেক পার্থক্য থাকলেও আমি নিশ্চিত আসন্ন সফরে সে ভালো করবে।’ বাংলাদেশ সফরের দলে জায়গা পাওয়া তরুণদের নিয়েও আশাবাদী ওয়াকার। এ ব্যাপারে সাবেক এই ডানহাতি পেসার বলেন, পাকিস্তান ক্রিকেট মিসবাহ-উল-হক এবং ইউনিস খানকে দিয়ে অনেক উপকৃত হয়েছে। কিন্তু তাদের অনুপস্থিতিতে তরুণদের অবশ্যই এগিয়ে আসতে হবে এবং দায়িত্ব সহকারে খেলতে হবে। তিনি আরো যোগ করে বলেন, ‘তরুণদের অবশ্যই বোঝা উচিত যে জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ পাওয়ায় তারা ভাগ্যবান এবং মাঠে তাদের দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। তরুণদের মধ্যে সামি আসলাম এবং বাবর আজম মেধাবী ব্যাটসম্যান। আমি নিশ্চিত যে এই সুযোগে তারা তাদের সর্বোচ্চটা মেলে ধরবে।’ বিশ্বকাপে পাকিস্তান আশানুরূপ নৈপুণ্য দেখাতে পারেনি। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বিদায় নেয়ায় দল এবং কোচ ওয়াকারকে অনেক সমালোচনার বাণে বিদ্ধ হতে হয়েছে। তবে লোকের এসব ‘বাজে কথায়’ বিরক্ত নন বলে জানালেন ওয়াকার। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘এটা স্বাভাবিক যে অনেক গণমাধ্যম থাকায় যে কেউ যেকোনো জায়গায় তাদের মতামত ব্যক্ত করতে পারে। তবে আমি শুধু গঠনমূলক সমালোচনার পক্ষে। যারা শালীনতার সীমা অতিক্রম করে আমার কাছে তাদের জায়গা নেই।’ বিশ্বকাপ শেষে দলের কয়েকজন খেলোয়াড়ের আচরণের অভিযোগ করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দেন ওয়াকার, যা নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়। দলের ‘বিশ্বকাপ পর্যালোচনা’ বিষয়ক এই প্রতিবেদনের ব্যাপারে ৪৩ বছর বয়সী এই কোচ বলেন, ‘আমি মনে করি বোর্ড আমার রিপোর্ট খতিয়ে দেখেছে এবং তারা এই রিপোর্ট অনুযায়ী কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো মনোভাব। যথাযথ মনোভাবের অধিকারী হতে না পারলে এই দলের অংশ হওয়া যাবে না।’ পাকিস্তান ক্রিকেটের শক্তি বাড়ানোর প্রসঙ্গে ওয়াকার বলেন, ‘এ দল, অনূর্ধ্ব-১৯ এবং ঘরোয়া ক্রিকেটের দলগুলোতে বোর্ডের বিনিয়োগ করা দরকার। স্টেডিয়ামগুলোও তদারক করা দরকার আমাদের। পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরলে আমরা যাতে কোনো দিক থেকে পিছিয়ে না থাকি।’ সূত্র : শীর্ষ নিউজ ডটকম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*