বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৯ জানুয়ারী ২০১৭, সোমবার: ৯ জানুয়ারী সকাল ১০ টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সংবাদ সম্মেলন কক্ষে বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের প্রতিবাদে এক সংবাদ সম্মেলন বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় স্কুল ও মাঠ রক্ষা কমিটির সভাপতি ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহবুবুর রহমান শিবলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন চন্দনাইশ উপজেলার প্রাক্তন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় স্কুল ও মাঠ রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিসেস খালেদা আক্তার চৌধুরী। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন প্রেসিডেন্ট স্কাউটস ও বিদ্যালয় রক্ষা কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মঈনুদ্দিন জুয়েল। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এম. আর জামিল ইসলামাবাদী, নারীনেত্রী ও প্রকাশক রেহেনা চৌধুরী, বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় স্কুল ও মাঠ রক্ষা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সংগঠক নোমান উল্লাহ বাহার, মোহাম্মদ আলমগীর, ক্রীড়া সংগঠক মুহাম্মদ শাহেদুল ইসলাম শাহেদ, ছাত্রনেতা সায়েম, চন্দনাইশ ছাত্র সমিতির সদস্য তৌফিক আলম চৌধুরী জোহাদী, সাহাব উদ্দিন রাজু প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে খালেদা আক্তার চৌধুরী বলেন, বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের অগ্রনায়ক, উপমহাদেশব্যাপী সুশিক্ষা সম্প্রসারণের অগ্রদূত, সমাজ সংস্কারক, সাহিত্যিক ও মুসলিম সাংবাদিকতার উদ্যোক্তা মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী ১৯২৪ সালে তাঁর অকাল প্রয়াত পুত্রের বেদানার্থ স্মৃতির প্রতি সম্মান রেখে শিক্ষাক্ষেত্রে অবহেলিত জনগোষ্ঠীকে শিক্ষায় প্রবেশ নিশ্চিত করতে “বরকল শামসুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়” নিজ গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ প্রস্তুতিকালীন সময়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ উক্ত বিদ্যালয়ের মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধারা দক্ষিণ চট্টগ্রাম তথা মিয়ানমার সীমান্ত পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধের সমন্বয় সাধন করেন। মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে বিদ্যালয়ের মাঠটিতে মহান মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্র সমর্পনও করেন। প্রায় শতবর্ষি এই বিদ্যালয়ের প্রাক্তন অনেক শিক্ষার্থী বর্তমানে বিশ্ব ও জাতীয় পর্যায়ের শিক্ষক, চিকিৎসক, বুদ্ধিজীবি, রাজনীতিবিদ ও ব্যবসাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেন। বরকল স্কুলের অনির্বাচিত স্কুল পরিচালনা পর্ষদের একটি অংশ তথাকথিত আয় বর্ধক প্রকল্পের নামে এলাকার মাননীয় সংসদ সদস্যকে ভুল তথ্য প্রদান করে বিদ্যালয়ে প্রবেশ পথ ও মাঠকে ঘিরে বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেছে। এছাড়া বাণিজ্যিক ভবনে নামে-বেনামে নিজেদের মধ্যে দোকান বরাদ্দ দিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিলে মেতে উঠেছে। “মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসালামাবাদী বিপনী বিতান” নাম দিয়ে শুরু করা বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণকে কেন্দ্র করে তীব্র ক্ষোভে ফুসে উঠছে বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, এতদঞ্চলের সর্বস্তরের জনগোষ্ঠী ও বিশেষত কিশোর-তরুণ সমাজ। সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, শিক্ষা ও ব্যবসা কখনই একসাথে চলতে পারে না। আমরা দোকান ও মার্কেট চাইনা, আমরা খেলার মাঠ অক্ষুন্ন দেখতে চাই। বিদ্যালয়ের চিরসবুজ খেলার মাঠ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি ও লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ও এলাকার তরুণ সমাজের শারীরিক গঠন ও মানসিক বিকাশে সহায়ক ভূমিকা পালন করে আসছে। ঐতিহ্যের স্বাক্ষী এই মাঠে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক সভা, প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল-ফিতর ও ঈদুল-আযহার নামাজ, জানাযার নামাজ, নিয়মিত ক্রীড়া চর্চাসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের একটি বৃহত্তর খেলার মাঠ হিসেবে স্বকীয় ভূমিকায় সমুজ্জল। অত্যন্ত দুঃখজনক সংবাদ হলেও সত্য যে, গত ০৮/০১/২০১৭ইং বিদ্যালয়ের সম্মুখে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের প্ররোচনায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জোরপূর্বক শিক্ষা কার্যক্রম থেকে বিরত রেখে রৌদ্রজ্জল দিনে রাস্তায় দাঁড় করিয়ে মানববন্ধন করে জনসমাজকে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। জনস্বার্থে বরকল এস জেড উচ্চ বিদ্যালয় স্কুল ও মাঠ রক্ষা কমিটির পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ৪ (চার) দফা দাবি উত্থাপন করছি। ১। বরকল স্কুলে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে নির্মিতব্য অবৈধ স্থাপনা অবিলম্বে শর্তহীনভাবে দখলমুক্ত করে পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে দিতে হবে। বৃক্ষ কর্তনপূর্বক পরিবেশের কোন ক্ষতি সাধন করা যাবে না। ২। বিতর্কিত স্বার্থান্বেষি মহল কর্তৃক মনগড়া বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ বিলুপ্ত করে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করতে হবে। ৩। বিদ্যালয়ের অন্যতম দাতা সাবেক এমপিএ মরহুম সোনামিয়া চৌধুরীর নামে বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণ করতে হবে। ৪। বরকল স্কুলের গত ১০ (দশ) বছরে আয়-ব্যয় স্বীকৃত অডিট ফার্ম কর্তৃক নিরীক্ষিত চূড়ান্ত হিসাব জনসম্মুখে প্রকাশ করার দাবী জানান।

Leave a Reply

%d bloggers like this: