ফটিকছড়ির সংরক্ষিত বনবিটের বনজ সম্পদ উজাড়

ফটিকছড়ি সংবাদদাতা : চট্টগ্রামের উপজেলা ফটিকছড়ির নারায়ণহাট, হাসনাবাদ ও হাজারিখিল রেঞ্জের আওতাভুক্ত বিভিন্ন বনবিটের বনজ সম্পদ উজাড়ের পাশাপাশি বন্যপ্রাণী নিধন হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগে এলাকাবাসী জানান, উক্ত রেঞ্জের নিয়ন্ত্রণে ফটিকছড়ি, বালুখালি, হাজারিখিল, কয়লা, বারমাসিয়া, আঁধারমানিক, হাসনাবাদ ও ধুরুং বনবিট এলাকা থেকে সংরক্ষিত বনজ সম্পদ রাতদিন ঠেলাগাড়ি, চাঁদের গাড়ি জিপ ও ট্রাকযোগে হেঁয়াকো-গহিরা সড়ক ও কাজিরহাট-নাজিরহাট সড়ক হয়ে বিভিন্ন স্থানে পাচার করা হচ্ছে। এছাড়া স্থানীয় বাঙালি ও পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা যৌথভাবে গভীর অরণ্যে জাল বসিয়ে ও ফাঁদে ফেলে লাঠি-বল্লম-তির দিয়ে আঘাত করে হরিণ-শূকর ও বনছাগল Katনিধন এবং পাহাড়ের থলি জমিতে ধানের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে বনমোরগ নির্বিচার নিধনে লিপ্ত রয়েছে। সম্প্রতি হারুয়ালছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ ইকবাল হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে ফটিকছড়ি বিট কর্মকর্তা আতিকুর রহমানের বিরুদ্ধে ইউপি কার্যালয় প্রাঙ্গণে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ইউপি সদস্য, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও এলাকাবাসী উক্ত বনবিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বনজ সম্পদ উজাড়ের অভিযোগ উত্থাপন করলে চেয়ারম্যান উপস্থিত জনগণকে উক্ত বনবিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় বন কর্মকর্তার (উত্তর-চট্টগ্রাম) বরাবরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন বলে জানান। এছাড়া ফটিকছড়ি বনবিট কর্মকর্তা কাজিরহাট বাজার ত্রিমোহনায় বনবিভাগের সাইনবোর্ড লাগিয়ে বনজ সম্পদ ভর্তি ঠেলাগাড়ি, চাঁদের গাড়ি জিপ ও ট্রাক থেকে রাতদিন চাঁদা আদায়ে লিপ্ত রয়েছেন উক্ত বনবিটের দুই প্রহরী। উপরোক্ত বিষয়ে ফটিকছড়ি বনবিট কর্মকর্তা আতিকুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যার কাজ সে করবে এবং উত্তর-চট্টগ্রাম ডিএফও-র অনুমতিক্রমে উক্ত সাইনবোর্ড টাঙানো হয়েছে। অথচ ওই ত্রিমোহনায় নারায়ণহাট রেঞ্জের নারায়ণহাট ও ধুরুং বিট কর্মকর্তারাও একই নিয়মে চাঁদা আদায় করছেন, কিন্তু কোনো জ্বালানিকাঠ, গোল ও রদ্দা কাঠ ভর্তি যানবাহন জব্দ বা লোকজন আটক নেই।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে উক্ত বনবিট কর্মকর্তা জানান, ‘সংরক্ষিত বনের নয়, উপকারভুক্ত ব্যক্তিদের জোত থেকে ওইসব বনজ সম্পদ পাচার চলছে।’ তাহলে সরকারের ৪০% প্রাপ্য বনজ সম্পদগুলো কোথায়? এব্যাপারে এলাকাবাসী পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে এবং বনজ ও প্রাণিজ সম্পদ রক্ষার্থে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: