প্রবাসীদের অর্থ পাঠাচ্ছে এমন ২৫টি দোকান দুবাইয়ে ধরা পড়েছে

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৩ জানুয়ারী ২০১৭, সোমবার: প্রবাসীদের অর্থ অবৈধ উপায়ে বাংলাদেশে পাঠাচ্ছে এমন ২৫টি দোকান দুবাইয়ে এক অভিযানে ধরা পড়েছে। ঝটিকা অভিযানে ধরা পড়া অবৈধ এই ২৫ দোকানের মালামাল জব্দ করা হয়েছে ও আটককৃতদের শাস্তি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির দৈনিক গালফ নিউজ।
প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার দুবাইয়ের ডিপার্টমেন্ট অব ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট (ডিইডি) কর্তৃপক্ষ জানায়, এই দোকানদাররা প্রবাসী বাংলাদেশিদের অল্প খরচে দেশে অর্থ পাঠানোর লোভ দেখাত। আর এভাবেই তারা গ্রাহক জোগাড় করে উবৈধ উপায়ে অর্থ পাঠায়। বলা হয়, ‘বিকাশ’ নামের একটি অ্যাপ ব্যবহার করে এ লেনদেন পরিচালনা করা হয়। অথচ এতে গ্রাহকরা প্রতারিত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। যে ২৫টি দোকান রেমিট্যান্স পাঠাত, এগুলোর কোনোটিই অর্থ স্থানান্তরে সরকারের অনুমতিপ্রাপ্ত নয়।
ডিইডির কমার্শিয়াল কমপ্লায়েন্স অ্যান্ড কনজ্যুমার প্রোটেকশন সেক্টরের সিইও মোহাম্মদ আলী রশিদ লুথা বলেন, এ অভিযানে যে কয়টি প্রতিষ্ঠান ধরা পড়েছে তা অল্প কিছু মাত্র, এমন বহু প্রতিষ্ঠান দুবাইয়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে যাদের কোনোটিরই লাইসেন্স নেই। ফলে তারা অবৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণ করছে। এরা যাতে সরকারের হাতে ধরা না পড়ে এ জন্য সব প্রতিষ্ঠান তাদের প্রচারণা চালাত বাংলা ভাষায়। অর্থ স্থানান্তর করা হতো ইলেকট্রনিক ডিভাইসে রাখা বাংলাদেশি সিম কার্ডের মাধ্যমে। গ্রাহকদের কোনো প্রমাণ বা চালান দেওয়া হতো না। তিনি বলেন, ‘সেসব যন্ত্রপাতিও জব্দ করেছি যেগুলোর মাধ্যমে অর্থ স্থানান্তর করা হয়। এসব প্রতিষ্ঠান কোনোটিরই লাইসেন্স নেই বা ইউএই কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে অনুমোদন নেয়নি। ’ তিনি বলেন, অবৈধ এসব কর্মকাণ্ড শুধু ইউএইর অর্থনীতির জন্যই ক্ষতিকর নয়, এর দ্বারা প্রবাসীরাও প্রতারিত হতে পারে, হারাতে পারে তাদের কষ্টার্জিত অর্থ। মোহাম্মদ আলী রশিদ লুথা গ্রাহকদেরও অনুরোধ জানান, তারা যেন এসব অবৈধ ব্যবসায়ীর ফাঁদে পা না দেয় এবং যেকোনো অবৈধ অর্থ স্থানান্তর প্রক্রিয়া চোখে পড়লে ডিইডিকে অবহিত করে। গালফ নিউজ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: