পাকিস্তানে বাস-ট্যাংকারের সংঘর্ষে ৫৭ নিহত

নিউজগার্ডেন ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে তেলবাহী ট্যাংকারের সংঘর্ষে নারী ও শিশুসহ কমপক্ষে ৫৭ জন নিহত  হয়েছে। আজ রোববার সকালে এ ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে।pakistan-1 মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে। করাচির জিন্নাহ হাসপাতালের চিকিৎসক সেমি জামালি বলেন, এখনও পর্যন্ত আমরা ৫৭টি মৃতদেহ পেয়েছি। সেগুলো পুরোপুরি পুড়ে একটির সঙ্গে আরেকটি লেগে গেছে। পাকিস্তানে শনিবার রাতে একটি যাত্রীবাহী বাস এবং তেল টেঙ্কারের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ৫৭ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো বেশ কয়েক জন। সংঘর্ষের পর দু’টি গাড়িতেই আগুন ধরে যায়। যাত্রীবাহী বাসটি করাচি থেকে শিকারপুর যাওয়ার পথে সুপার হাইওয়ে লিঙ্ক রোডে এই দুর্ঘটনায় পড়ে। pak-ded-57করাচির উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা রাও মুহাম্মদ আনওয়ার সংবাদ সংস্থা এএফপিকে জানান, সংঘর্ষের পরপরই বাসটিতে আগুন ধরে যায়। এতে নারী ও শিশুসহ বেশ বহু মানুষ মারা যায়। কিছু মৃতদেহ আগুনে এমনভাবে পুড়ে গেছে যে তাদের চেনা যাচ্ছে না। ডা. জামিল জানিয়েছেন, কমপক্ষে ছয়টি শিশুর লাশ নারীদের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে আছে এবং ধারণা করা হচ্ছে ওই নারীরা শিশুদের মা। তিনি আরো বলছেন, অনেকে এমনভাবে পুড়েছে যে তাদের লাশ সনাক্ত করা যাচ্ছে না। কেবল ডিএনএ টেস্ট করলেই তাদের পরিচয় জানা যাবে। স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে ডন পত্রিকা জানিয়েছে,  নিহতদের  সবাই বাসের যাত্রী। বাসটিতে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছিল। pakistan-2এর ছাদেও বেশ কয়েকজন যাত্রী ছিল। তবে গাড়িতে আগুন ধরে যাওয়ার পর তারা লাফিয়ে নেমে যাওয়ায় বেঁচে গেছে। তাৎক্ষণিকভাবে দুর্ঘটনার কারণ জানা যায়নি। এ সম্পর্কে করাচির পুলিশ কমিশনার সোয়াইব সিদ্দিক বলেন, তেলবাহী ট্যাংকারের চালকের অবহেলার কারণেই ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন ওই চালক। পাকিস্তানে প্রতি বছর গড়ে প্রায় ৯ হাজার সড়ক দুর্ঘটনা হয়ে থাকে। এতে মারা যায় সাড়ে চার হাজার মানুষ। করাচির ইস্পাত নগরী থেকে শিকারপুর যাওয়ার পথে সুপার হাইওয়ের কাথোর লিংক রোডে চলন্ত ট্যাংকারের সঙ্গে  এ  সংঘর্ষ হয়। মধ্যরাতের একটু পরেই এ সংঘর্ষ হয়েছে এবং ট্যাংকারটি ভুল দিক থেকে ছুটে এসে প্রায় যাত্রীবাহী বাসটিকে ধাক্কা দেয়। বাসটিতে এ সময়ে ৬০ জনের বেশি যাত্রী ছিল। তিন মাসের মধ্যে পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে এ নিয়ে দ্বিতীয় মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*