পটিয়ায় শিক্ষার্থীদের নিয়ে বারী এগ্রো ফার্মের “ফিরে চল মাটির টানে” কৃষি উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৫ ফেব্র“য়ারী: বারী এগ্রো ফার্মের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বজলুল বারী চৌধুরী বলেন বাংলাদেশে জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৪০ লক্ষ। জন সংখ্যার খাদ্যের চাহিদা পূরণ করতে ধান উৎপাদন অতীব জরুরী। বিশ্বের জলবায়ুর পরিবর্তনের কারণে কৃষি এবং মৎস্য মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন। আউশ, আমন দুই মৌসুমে বৃষ্টি, শিলা বৃষ্টি, তুফান, বন্যায় কৃষক মারাত্মকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। ধানের মূল্য কম হওয়ায় সর্ব সম্বল হারিয়ে কৃষক প্রায় নি:স্ব। কৃষক কৃষি কাজ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে, নতুন নতুন আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে যুগের সাথে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে। বাংলাদেশ কেন পিচিয়ে থাকবে। চলতি বোরো মৌসুমকে সামনে রেখে বারী এগ্রো ফার্মের উদ্যোগে বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ফিরে চল মাটির টানে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কৃষি উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা আয়োজন করে। কৃষি কাজে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিক্ষিত যুব সমাজ এগিয়ে আসলে সফলতা পাওয়া সম্ভব।
আধুনিক প্রযুক্তি বলতে:Agro
১। মান সম্মত বীজের ব্যবহার। বীজ তলা থেকে ৩০-৩৫ দিন বয়সের সুষ্ঠু সবল ধানের চারা রোপন করতে হবে।
২। সুষম সার, জৈব সারের ব্যবহার করলে খরচ কম, ফলন ভাল হয়। ১ কেজি ধান উৎপাদন করতে ৩-৫ হাজার লিটার পানির প্রয়োজন হয়।
৩। এক চারা প্রদ্ধতিতে ধানের চারা রোপন এবং ৮ ইঞ্চি ব্যবধানে সারিতে চারা রোপন। এক চারা হতে আরেক চারা ৬ ইঞ্চি ব্যবধানে চারা রোপন।
৪। চারা রোপনের শুরু থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত ৩-৫ সে.মি পানি জমানো রাখতে হবে।
৫। আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট কর্তৃক উদ্ভাবিত জ্বালানি সাশ্রয় এ.ডব্লিউ.ডি প্রযুক্তি, যেমন- ৩০ সে.মি পিবিসি পাইপ, ১০ সে.মি বাদ রেখে ২০ সে.মি ছিদ্র করে জমিতে ছিদ্রযুক্ত অংশটি মাটিতে পুঁতে দিতে হবে। চারা লাগানোর ১৫ দিন পর ৫ সে.মি পানি জমাট রেখে ধানের ফুল না আসা পর্যন্ত সেচ দেওয়া বন্ধ রাখা যাবে। পানি কমতে কমতে ৩০ সে.মি পাইপের নিচে যখন মাটি দেখা যাবে আবার পানি দিতে হবে। সেক্ষেত্রে ৪০ ভাগ পানি সাশ্রয় হবে।
৬। গুটি ইউরিয়া কম ব্যবহার করে ধান উৎপাদন বৃদ্ধিতে গুটি ইউরিয়া সার লাভজনক প্রযুক্তি। গুটি সারের কার্যকারিতা প্রায় শতকরা ৬০-৭০ ভাগ। নাইট্রোজেন গ্যাস উড়ে যেতে পারে না। পানির সাথে মিশ্রে এক জমি হতে অন্য জমিতে যেতে পারে না। প্রতি চার গোছার মাঝ খানে ২.৭ গ্রাম ওজনের সার ৪ ইঞ্চি গভীরে পুতেঁ দিতে হবে। গুটি ইউরিয়া সার প্রয়োগে সাধারণ ইউরিয়ার চেয়ে ৪০ ভাগ সার কম লাগে। ৩০% ফলন বৃদ্ধি হয়।
৭। ধান ক্ষেতে পারচিং প্রযুক্তি ব্যবহার। ধানি জমিতে পারচিং ব্যবহার করলে, পারচিং এর উপর পাখি বসে ক্ষতিকারক পোকা, বাচ্চা, ডিম খেয়ে পোকা দমনের প্রদ্ধতি কম ব্যয়বহুল এবং পরিবেশ বান্ধব। এতে কীটনাশক খরচ কম হয়।
আধুনিক নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিক্ষিত যুব সমাজ এগিয়ে আসলে বাম্পার ফলন ফলিয়ে খাদ্যের স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন করে কৃষিকে বাণিজ্যিক রূপ দেওয়া সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*