নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চট্টগ্রাম-৫ আসনের প্রার্থী মীর ইদরিস নদভী

মোঃ উসমান গনি, হাটহাজারী, ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ ইংরেজী, বৃহস্পতিবার: লেভেল প্লেইং ফিল্ড না থাকার অভিযোগ এনে চট্টগ্রাম-৫ (আংশিক বায়েজিদ) হাটহাজারী আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে সরে দাড়ালেন হযরত হাফেজ্জী হুজুর প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মনোনিত প্রার্থী মাওলানা মীর ইদরিস নদভী (বট গাছ)।
গতকাল বুধবার (২৬ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে তার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেন। হাটহাজারী পৌর এলাকার জেলা-পরিষদ মার্কেটের ২য় তলায় তার নির্বাচনি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। মাওঃ ইদরীস নদভী বলেন দেশের বৃহত্তর স্বার্থে, বাংলাদেশে ইসলামী হুকুমত, ইনসাফ ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে, মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত হাটহাজারী গড়ার প্রত্যয়ে এবং ইসলাম শরীয়ত পরিপন্থি আইনের বিরুদ্ধে জাতীয় সংসদে কথা বলার উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম- ৫ (বায়েজিদ আংশিক) আসনে আমি হযরত হাফেজ্জী হুজুর প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মনোনয়নে, বট গাছ মার্কা প্রতীক নিয়ে, হাটহাজারী নাগরিক কমিটি ও ওলামায়ে কেরামের সমর্থনে প্রার্থী হয়েছিলাম। বর্তমানেও আমি বৈধ প্রার্থী আছি। আমরা আশা করেছিলাম, দীর্ঘদিন পরে বাংলাদেশের সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনী প্রচারনা শুরু হওয়ার পর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সহিংসতা দেখা দিলেও মনে করেছিলাম সামরিক বাহিনী নামার পর শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে দূর্ভাগ্যজনক বিষয় হলো সেনাবাহিনী নামা সত্ত্বেও সারা দেশে সহিংসতা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। এমনকি মাঠ কর্মীদের ধাওয়া, হামলা-মামলা, গ্রেফতার ও হুমকির কারণে আমাদের সাধারণ ভোটাররা সংকিত হয়ে পড়েছে। এমতাবস্থায় স্বাধীনভাবে ভোট প্রয়োগ ও গ্রহণ করা অনেকাংশে অসম্ভব এবং বর্তমানে নির্বাচনের “লেভেল প্লেইং ফিল্ড” বলতে কিছুই নেই এবং আমি আশংকা করছি এই উদ্বেগজনক অবস্থায় নির্বাচন হলে দেশে গৃহযুদ্ধ অনিবার্য হয়ে উঠবে। তিনি বলেন, আমি হাটহাজারী নাগরিক কমিটি ও ওলামায়ে-কেরামের পরামর্শে নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং নির্বাচনে না থাকার ঘোষণা দিচ্ছি। আমি জানি আমার এই ঘোষণার কারণে আশাবাদী সকল স্তরের নেতাকর্মী, শুভাকাঙ্খি ও ভোটাররা বিশেষ করে যারা আমার নির্বাচনী কাজে অক্লান্তিক পরিশ্রম করেছেন তারা ব্যথিত হবেন। তারপরেও ভয়-ভীতিহীন নির্বাচনী পরিবেশ না থাকায় আমি এই ঘোষণা দিতে বাধ্য হচ্ছি। এজন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত এবং আপনাদের সকলের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তিনি বলেন, আমি একটি বিষয় স্পষ্ট করতে চাই, আমার নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর মূল কারণ হচ্ছে সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশের অনুপস্থিতি। কোন ব্যক্তি বা দলের স্বার্থে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করি নাই এবং আমি কোন ব্যক্তির স্বার্থ, প্ররোচনা বা আতাতের কারণে নির্বাচন থেকে সরে দাড়াচ্ছি না।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ আলী, আব্দুর রহমান, মাওলানা আলী আকবর, আহাসান উল্লাহ, মাওলানা এমরান সিকদার, মাওলানা এনায়েত হোসাইন, মীর আব্দল হালিম, এস.এম ফারুক, মাওলানা কামরুল ইসলাম, শেখ আহম্মদ, হাফেজ মাওলানা শেখ আহম্মদ, মাওলানা ইকবাল মাদানী, হাফেজ মাওলানা হাবিব ও হাফেজ মাওলানা আমীন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*