নাসিবের মাসব্যাপী চট্টগ্রাম ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৫ এপ্রিল ২০১৯ ইংরেজী, সোমবার: নগরীর হালিশহরের আবাহনী মাঠে মাসব্যাপী ‘প্রথম চট্টগ্রাম ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও বাণিজ্য মেলা ২০১৯’ এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রসারের লক্ষ্যে ‘জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতি বাংলাদেশ (নাসিব) চট্টগ্রাম মহানগর এই মেলা আয়োজন করেছে। সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে ফিতা কেটে মেলার শুভ উদ্বোধন করেন নাসিব কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডেন্ট মীর্জা নুরুল গণি শোভন সিআইপি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডের উপ ক্রীড়া সম্পাদক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, নাসিব চট্টগ্রাম জেলা প্রেসিডেন্ট নুরুল আজম খান, নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর নির্বাহী কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. মাহাবুবুর রহমান, ভাইস প্রেসিডেন্ট দেওয়ান মো. আকতার হোসেন, বেবী হাসান, সিতারা রহমান, সদস্য মো. মামুন, মো. তাজউদ্দীন। নাসিব চট্টগ্রাম মহানগর প্রেসিডেন্ট এ এস এম আবদুল গাফফার মিয়াজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এ সেলিম, ভাইস প্রেসিডেন্ট এজহারুল হক, মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের, ব্যবসায়ী হাফেজ আবুল হাসান, আশিক উল্লাহ চৌধুরী টুকু, তসলিম উদ্দিন আনন্দ, মো. আজাদ, মো. আব্দুল মালেক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মীর্জা নুরুল গণি শোভন বলেন, ‘নাসিব সারা দেশে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছে। নাসিবের প্রায় ১৫ হাজার সদস্য রয়েছে। এই শিল্পের উদ্যোক্তাদের অনেক সমস্যা রয়েছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প বাজার সম্প্রসারণ, অর্থায়ন, এক্সেস টু ইনফরমেশনসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত। এ সব সমস্যা সমাধানে সরকারের সুদৃষ্টি প্রয়োজন। নাসিব বিসিক ও এসএসই ফাউন্ডেশনকে সাথে নিয়ে নিয়মিত মেলা আয়োজন করে থাকে। চট্টগ্রাম ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ও বাণিজ্য মেলা থেকে আমরা নানা নির্দেশনা পাবো। এই নির্দেশনা আগামী দিনে চট্টগ্রামকে নিয়ে ভাবনার সুযোগ করে দেবে।’
তিনি আরো বলেন, ‘দেশের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের নানা পরিকল্পনা রয়েছে। এই সব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নাসিবও সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। এসডিজি ও ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে নাসিবও কাজ করে যাচ্ছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উন্নত না হলে সরকারের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়।’
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি মীর্জা নুরুল গণি শোভন মেলার বিভিন্ন প্যাভিলয়ন ও স্টল পরিদর্শন করেন এবং ব্যবাসয়ীদের সাথে মত বিনিময় করেন।
মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৮০টি স্টল, ফরেইন জোনে ইরানী ও থাই প্যাভিলিয়নসহ রয়েছে ফুড জোন। মেলায় হস্তশিল্প, কুটির শিল্প, তাঁত ও বাটিক শিল্প সামগ্রী ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের বিপুল সমাহার রয়েছে। শিশুদের বিনোদনের জন্য রয়েছে ওয়াটার রাইড, নাগর দোলা ইত্যাদি। মেলায় প্রবেশ মূল্য ১০ টাকা। শিশুদের প্রবেশ ফ্রি। মেলা প্রতিদিন সকাল দশটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চলবে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি এবং কুটির শিল্প খাতের উদ্যোক্তাদের প্রাচীনতম সংগঠন জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ (নাসিব) ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দেশের ৬৪ জেলায় এই সংগঠনের কার্যক্রম প্রসারিত হয়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: