নানা উছিলায় লন্ডন যাওয়ার চেষ্টা করছেন বিএনপি নেতারা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ জুলাই ২০১৭, শুক্রবার: নানা উছিলায় লন্ডন যাওয়ার চেষ্টা করছেন বিএনপি নেতারা। দলটির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া লন্ডন পৌঁছানোর আগে থেকেই দলটির নেতাদের এ তৎপরতা শুরু হয়- যা এখনো অব্যাহত রয়েছে। কেউ কেউ আগেই পৌঁছে গেছেন। বিদ্যমান বাস্তবতায় অনেকে যেতে আগ্রহী হলেও আপাতত যেতে পারছেন না। তবে যাওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। এ জন্য নানান তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন।
লন্ডনে সেমিনারে যোগ দিতে ইতোমধ্যেই সেখানে পৌঁছেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমীন ফারহানা। ছেলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার নামে সেখানে পৌঁছেছেন নিখোঁজ ইলিয়াস আলী পতœী তাহসীনা রুশদীর লুনা। যিনি বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য। খালেদা জিয়ার সঙ্গে একই ফ্লাইটে গেছেন নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আওয়াল। দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়াল মিন্টুও পৌঁছেছেন সেখানে। এছাড়া আগামী নির্বাচনে দলের কাছে মনোনয়ন চাচ্ছেন এমন ডজনখানেক মাঝারি মানের নেতা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন লন্ডন যাওয়ার। ভিসা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে তারা এখনো পৌঁছতে পারেননি। জটিলতা কেটে গেলে লন্ডনের উদ্দেশে উড়াল দেবেন তারা।
এসব নেতার ধারণা, চূড়ান্ত মনোনয়ন ভাগ্য নির্ধারিত হবে লন্ডনে। সেখানে পৌঁছে নতুন প্রার্থী হিসেবে নিজেকে তুলে ধরতে পারলেই ভাগ্যের শিকে ছিঁড়তে পারে। লন্ডন ম্যানেজ করতে পারলেই মনোনয়ন কেনা বেচা, দেন দরবার করার একটি মোক্ষম সুযোগ হাতে আসতে পারে। এ জন্য লন্ডনকেই ভরসার জায়গা মনে করছেন এসব নেতা। মনোনয়ন যদি নাও নিশ্চিত হয়, তারেক রহমানের দর্শন পাওয়াটাই বা কম কি? এটা প্রচার করে দলে নিজের জায়গা তৈরি করা সহজ হবে। এর বাইরে এক ধরনের নেতা রয়েছেন যারা লন্ডন যাওয়ার চেষ্টা করছেন নিজেদের গুরুত্ব বাড়াতে। যারা বলে বেড়াচ্ছেন তারেক রহমান তাদের লন্ডন যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। অন্য এক শ্রেণির নেতা রয়েছেন রথ দেখা ও কলা বেচার তালে। তারা মনে করছেন, লন্ডন ঘুরে আসতে পারলেই নিজেকে গুরুত্বপূর্ণ নেতা বা দলের কাছে অপরিহার্য বলে জাহির করা যাবে। পাশাপাশি এসব নেতা দেশে ফিরে নিজের মনোনয়ন নিশ্চিত হয়েছে এমন প্রচারণা চালাবেন।
দলের বিশেষ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা ড. আসাদুজ্জামান রিপন জানান, শারিরিক অসুস্থতার কারণে তিনি লন্ডন যেতে পারছেন না। কমনওয়েলথের একটি সেমিনারে অংশ নেয়ার জন্য তার নিমন্ত্রণ ছিল। বিশেষ সম্পাদকের দায়িত্বের আগে তিনি দলের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। সেই সুবাধে এখনো তিনি আন্তর্জাতিক লবির সঙ্গে যোগাযোগের দায়িত্ব পালন করে থাকেন।
ঢাকা ছাড়াও প্রবাসে রয়েছেন এমন নেতারাও এখন লন্ডনমুখী। ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, ড. ওসমান ফারুক, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক এহসানুল হক মিলনও এখন লন্ডনে রয়েছেন বলে লন্ডনের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। এছাড়া আমেরিকা থেকে পৌঁছেছেন সৈয়দ বদরে আলম, সুইডেন থেকে মহিউদ্দিন আহমেদ ঝিন্টু, ডেনমার্ক থেকে আহমেদুল হক কর্নেল, গাজী মনির আহমেদ, ফিনল্যান্ড থেকে জামান সরকার মনির, কামরুল হাসান জনি, জার্মানি থেকে সেলিম রেজা।
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ তথ্য মানতে নারাজ। এ জন্য তিনি সরকার ও সরকারের এজেন্সিগুলোকে দায়ী করেন। তিনি বলেন, এসব ভিত্তিহীন, নোংরা ও বানোয়াট কল্পকাহিনী। ভোরের কাগজ

Leave a Reply

%d bloggers like this: