ধনী পরিবারগুলোর বার্ষিক ট্যাক্সের ৩০ শতাংশ গোপন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৩ জুন ২০১৭, শনিবার: বিশ্বের সবচেয়ে ধনী (সুপার রিচ) পরিবারগুলোর বড় একটি অংশ তাদের বার্ষিক ট্যাক্সের অন্তত ৩০ শতাংশ গোপন বলে জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। ফাঁস হওয়া পানামা পেপার্সের তথ্য বিশ্লেষণ করে তারা এই অভিমত দিয়েছেন। কমপক্ষে চার কোটি মার্কিন ডলারের বেশি সম্পদের মালিক এমন পরিবারগুলোকে হিসাব করা হয়েছে অতিধনী পরিবার হিসেবে। বিশ্বে এমন পরিবার ০.০১ শতাংশ।
এ ছাড়া সম্প্রতি ট্যাক্স ফাঁকিবিষয়ক প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা শীর্ষক ওই রিপোর্টে এইচএসবিসির সুইস ব্যাংকিং বিভাগের মানিলন্ডারিংয়ের বিষয়টিও হিসেবে ধরা হয়েছে। অর্থনীতিবিদরা দেখতে পেয়েছেন, মানুষের সম্পদ বৃদ্ধির সাথে সাথে তাদের সম্পদ গোপন করার প্রবণতাও বেড়েছে। সাধারণ জনগণের যে পরিমাণ ট্যাক্স বকেয়া থাকে তার চেয়ে অন্তত দশগুন বেশি ট্যাক্স গোপন করে অত্যধিক ধনী ব্যক্তিরা। সাধারণের বকেয়া ট্যক্সের হার সাধারণত ২ শতাংশ।
গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন, যেসব ট্যাক্স গোপন করা হয় তার বেশির ভাগই বিদেশী বিনিয়োগকৃত অর্থের। এই অর্থ শুধু ধনীদের হাতেই থাকে, যাদের সামর্থ্য আছে হিসাবরক্ষক, আইনজীবী ও ব্যাংকারদের মাধ্যমে এসব অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করার। গবেষণা প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, শীর্ষ এক শতাংশ ধনী পরিবারগুলোর মধ্যে বিদেশে সম্পদ গোপন করার সম্ভাবনা অনেক বেড়েছে। রিপোর্টের হিসাব মতে, ০.০১ শতাংশ লোক ৫০ শতাংশ সম্পদের মালিক।
নরওয়ের ইউনিভার্সিটি অব লাইফ সাইন্স ও ডেনমার্কের ইউনিভার্সিটি অব কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এই রিপোর্টের জন্য নরওয়ে, সুইডেন ও ডেনমার্কের জনগণের সম্পদকে বিবেচনায় নিয়েছেন। এই দেশটিতে যেকোনো নাগরিকের ব্যক্তিগত সম্পদের সব তথ্য রয়েছে সরকারের কাছে। তারা ধারণা করছেন, অন্য দেশগুলোতে এই পরিমাণ বা এর চেয়েও বেশি ট্যাক্স গোপন করার প্রবণতা রয়েছে।
গবেষকরা বলছেন, তারা দেখতে পেয়েছেন নরওয়ের শীর্ষ ধনী ০.১ শতাংশ পরিবারের মধ্যে ৪০ শতাংশই তাদের বিদেশে থাকা সম্পদের অর্ধেক গোপন করছেন। ল্যাটিন আমেরিকা, এশিয়া ও ইউরোপের অন্য দেশগুলোতে বিদেশে সম্পদ রাখার প্রবণতা এর চেয়ে অনেকগুণ বেশি। সে হিসেবে নরওয়েতেই ট্যাক্স ফাঁকি দেয়ার প্রবণতা সবচেয়ে কম হতে পারে। গবেষক দলের প্রধান অ্যানেট্টে অ্যাস্টাডসায়েটার বলেন, তাদের লক্ষ্য নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে বিশ্বের পরিসংখ্যানগত অসমতা সংশোধন করা। যাতে অতি ধনীদের সহজেই চিহ্নিত করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*