দোহাজারী সবজি বাজার

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২১ ডিসেম্বর, বুধবার: দোহাজারী সাংগু নদীতে আসছে সারি সারি নৌকা। কোনটা ভর্তি ফুলকপিতে, কোনটা মুলায়, আবার কোন কোনটা বেগুনে ঠাসা। নৌকাগুলোর গন্তব্য, দোহাজারী রেলওয়ে মাঠের ঘাঁট। সেই ঘাঁটের অদূরেই দক্ষিণ চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় সবজির হাট বলে খ্যাত ‘দোহাজারী সবজি বাজার’। দোহাজারীর এই বাজারে সবজি নিয়ে আসছে কৃষক।
প্রতিদিন ভোর ছয়টা থেকেই কৃষকরা সবজি নিয়ে আসেন এ বাজারে। ফুলকপি থেকে বাধাকপি, মুলা, আলু, বেগুন, বরবটি, পটল, শিম, শশা, লাউ, ঝিঙা, চিচিংগা, ঢেড়ষ, মিষ্টি কুমরা, টমেটো, করলা কিংবা কাকরল, সঙ্গে বিভিন্ন রকমের শাক-কী নেই এই বাজারে।
ভোর থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত এই হাটে সবজির মেলা বসে। সবজির পসরা সাজিয়ে বিক্রেতারা বসেন এখানে। চট্টগ্রাম নগরীসহ বিভিন্ন এলাকার পাইকারি ক্রেতারা এখান থেকে সবজি নিয়ে ফেরেন নিজ নিজ গন্তব্যে। প্রতিদিনিই ১০০ থেকে ১৫০ পিকআপ সবজি বিক্রি হয় এই বাজারে।
সাংগু নদীর উত্তরপাড়ে গিয়ে দেখা গেছে, হাজারীবাজার, বারতখানা, চাগাচর, জামিরজুরী, লালটিয়া, দিয়াকুল, রায়জোয়ারা, কিল্লাপাড়া, লালিয়ার চর সহ নানা এলাকায় সবজির চাষ হচ্ছে। দোহাজারী সাংগু নদীর পানি দিয়েই বছরভর সবজি চাষ হয় এসব জায়গায়।
দুই ঝুড়ি করে সবজি বিক্রি করছেন কৃষকরা। মাপজোকের ঝামেলা নেই। আনুমানিক হিসেবেই বিক্রি হচ্ছে এসব সবজি। দেখা গেছে, দুই ঝুড়ি মুলা বিক্রি হচ্ছে এক হাজার টাকায়, ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ১৬০০ টাকায়, বাধাকপি ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকায়। একইভাবে অন্যান্য সবজিগুলোও বিক্রি হচ্ছে।নদীর পানিতে সবজি পরিষ্কার করছে কৃষক
কৃষকদের দাবি প্রতি দুই ঝুড়িতে মুলা আছে প্রায় ১০০ কেজি, ফুলকপি ও বাধাকপি আছে প্রায় ৮০ কেজি করে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: