দেশে ১০০টি ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার: গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৫ জানুয়ারি ২০১৭, রবিবার: দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে সরকার সারা দেশে ১০০টি ইকোনমিক জোন প্রতিষ্ঠার যে উদ্যোগ নিয়েছে তার আশানুরূপ ফল পেতে বিনিয়োগকারীদের ইনসেনটিভ (প্রণোদনা) ও টেক্স হলিডে (কর অবকাশ সুবিধা) দেওয়া প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।
রোববার (১৫ জানুয়ারি) সকালে নগরীর রেডিসন ব্লু চিটাগাং বে ভিউতে অনুষ্ঠিত ‘ইকোনমিক জোনগুলোত বিনোয়গ আকৃষ্টকরণ বিষয়ক সেমিনারে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন মন্ত্রী।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঐকন্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। তিনি এবার উদ্যোগ নিয়েছেন বাংলাদেশকে উন্নত দেশে রূপান্তরিত করার। তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) সৃষ্টি। বাংলাদেশের কৃষিকাজ হয় না, কোনো কাজে আসে না এমন জমিগুলোতে একশটি ইকোনমিক জোন স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই ইকোনমিক জোন স্থাপনের কাজ চলছে।
=বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সেমিনারের প্রথম পর্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বিভাগীয় কমিশনার মো. রুহুল আমিন ও চট্টগ্রাম চেম্বার অ্যান্ড কমার্সের সভাপতি মাহবুবুল আলম। ইকোনমিক জোনগুলোতে দেশি-বেদেশি বিনোয়গকারীদের আকৃষ্ট করতে ইনসেনটিভ ও টেক্স হলিডে দিতে হবে মন্তব্য করে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, ‘মালয়েশিয়া বা অন্যান্য উন্নত রাষ্টগুলোর মতো বিনোয়গে আকৃষ্ট করতে জমির দাম কমানো হয়েছে। মালয়েশিয়ার একসময়ের প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ দেশকে এগিয়ে নিতে বিনোয়গকারীদের এক রিংগিতে এক একর জায়গা দিয়েছিলেন। আমাদের বেজার চেয়ারম্যানও শেষ সভায় প্রধানমন্ত্রীকে এ বিষয়ে বললে তিনি ইকোনমিক জোন স্থাপন হওয়া এলাকাগুলোতে বিনোয়গকারীদের জন্য জমির দাম ২৫ শতাংশ কমিয়ে দিয়েছেন। তবে বাংলাদেশ এখনও আমেরিকা বা অন্যান্য উন্নত রাষ্ট্রের পর্যায়ে যায় নি। তাই দেশি-বেদেশি বিনোয়গকারীদের আকৃষ্ট করতে ইনসেনটিভ ও টেক্স হলিডে দিতে হবে। আশা করবো বেজার চেয়ারম্যান আগামী সভায় বিষয়টি উত্থাপন করবেন।’
তিনি বলেন, বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান উদ্যোগ নিয়েছেন দুর্গম এলাকাগুলো উন্নত করার। সেই লক্ষ্যে কাজ করছেন। কক্সবাজারের সাবরাং এ ট্যুরিজম পার্ক করার কাজ চলছে। তবে এসবের পাশাপাশি আরও অনেক কিছু থাকা দরকার। যা ব্যবসায়ীদের আকৃষ্ট করবে। নতুন যুগ যেটা চায় সেটাই করতে হবে। ইনসেনটিভ ও টেক্স হলিডে সুবিধা দিলেই ইকোনমিক জোনগুলোতে আশানুরূপ ফল পাওয়া যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*