দেশে প্রতি বছর দুই লাখেরও বেশি মানুষ ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে: শেখ হাসিনা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২১ জুন ২০১৭, বুধবার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার ক্যানসার চিকিৎসা নিশ্চিতকরণে আরও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরি করতে কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছে। এ লক্ষ্যে চিকিৎসকদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বুধবার জাতীয় সংসদে তাঁর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এই কথা বলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, দেশে প্রতি বছর দুই লাখেরও বেশি মানুষ ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে। দেশের মোট জনসংখ্যার প্রতি ১০ লাখ মানুষের জন্য মাত্র একজন ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। এই চিকিৎসাও ব্যয়বহুল, বিশেষ করে দরিদ্র, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য চিকিৎসা ব্যয় কষ্টসাধ্য-কথাটি সত্য।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের ক্যানসার চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে উন্নত ও আধুনিক চিকিৎসা প্রদানের জন্য আওয়ামী লীগ সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, দেশে বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালকে আওয়ামী লীগের বর্তমান আমলেই ২০০৯ সালের ৫০ শয্যা থেকে ১৫০ শয্যা এবং ২০১৫ সালের ১৫০ শয্যা থেকে ৩০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। এ হাসপাতালে আধুনিক ও উন্নত চিকিৎসা প্রদানের লক্ষ্যে উন্নত ও আধুনিকমানের ক্যানসার চিকিৎসার যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করে ক্যানসার রোগীদের স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ক্যানসার চিকিৎসা বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্যে পর্যায়ক্রমে দেশের পুরাতন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুরোতে নতুন রেডিওথেরাপি মেশিন সংযোজনের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্যানসারের ওষুধের বিদেশ নির্ভরতা কমাতে এবং উচ্চ মূল্যের ওষুধ সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে আনার জন্য দেশীয় কোম্পানিগুলোকে ক্যানসারের ওষুধ প্রস্তুতের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালসহ দেশের যেসব সরকারি হাসপাতাল এ রোগের চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে এবং ক্যান্সারের ওষুধ বিনামূল্যে প্রদানের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বেসরকারি হাসপাতালের ব্যয় মূল্যের তুলনায় প্রায় ১০ ভাগের ১ ভাগ মূল্যে সরকারি হাসপাতালে এ থেরাপি চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বিনামূল্যেও এই চিকিৎসা প্রদান করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাধারণ মানুষকে স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ঢাকায় বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে উঠা বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটি হাসপাতালের ওয়েল ফেয়ার হোম, ঢাকা আহসানিয়া মিশন ক্যানসার ডিটেকশন অ্যান্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টার ও দি ন্যাশনাল ইএনটি অ্যান্ড হেড নেক ক্যানসার ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশকে সরকারিভাবে অনুদান প্রদান করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*