‘দুর্বলতা সমাজে প্রকট’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৩১ ডিসেম্বর, শনিবার: পুরুষত্বহীনতা বা পুরুষের শারীরিক অক্ষমতা বা দুর্বলতা সমাজে প্রকট আকার ধারণ করেছে। এতে উঠতি বয়সের যুবকরা হতাশ। অভিভাবকরা বেশদুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। পুরুষত্বহীনতা: এটি পুরুষের যৌনকার্যে অক্ষমতাকে বুঝায়।
শ্রেণীবিভাগ: পুরুষত্বহীনতাকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়-
১.ইরেকশন ফেইলিউর: পুরুষ লিঙ্গের উত্থানে ব্যর্থতা।
২.পেনিট্রেশন ফেইলিউর: লিঙ্গের যোনিদ্বার ছেদনে ব্যর্থতা।
৩.প্রি-ম্যাচুর ইজাকুলেশন: সহবাসে দ্রুত বীর্য-স্খলন তথা স্থায়ীত্বের অভাব।
কারণ: প্রধান কারণগুলো হচ্ছে-
* বয়সের পার্থক্য
* পার্টনারকে অপছন্দ (দেহ-সৌষ্ঠব, ত্বক ও মুখশ্রী)
* দুশ্চিন্তা, টেনশন ও অবসাদ
* ডায়াবেটিস
* যৌনবাহিত রোগ (সিফিলিস, গনোরিয়া)
* রক্তে সেক্স-হরমোনের ভারসাম্যহীনতা
* যৌনরোগ বা এইডস-ভীতি * নারীর ত্রুটিপূর্ণ যৌনাসন
* সেক্স-এডুকেশন এর অভাব।
যুবকরা হাতুড়ে ডাক্তারের কাছে গিয়ে স্বেচ্ছায় বিভিন্ন হরমোন ইনজেকশন অথবা অকার্যকর ওষুধ সেবন করে। এটি মোটেই কাম্য নয়। এর পার্শ্ব-ক্রিয়ায় শেষ পর্যন্ত সত্যিকারভাবে পুরুষত্বহীনতার আশঙ্কা দেখা দেয়। যা থেকে পরবর্তীতে আরোগ্য লাভ করা অসম্ভব।
লেখক: ডা. একেএম মাহমুদুল হক (খায়ের)। ত্বক, যৌন, অ্যালার্জি ও কসমেটিক সার্জন, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা। ফোন : ০১৬৭৮৫৯২০৭১

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*