দলে ফিরছেন আবার মোস্তাফিজুর রহমান!

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ডিসেম্বর ০৯, ২০১৬
হাসি ফিরেছে তাঁর মুখে, জাতীয় দলে ফিরে এলেন যে আবার! কাল ঢাকা ছাড়ার আগে তাসকিনের সঙ্গে মোস্তাফিজ।‘আমি যাব না’—বলেন কী মোস্তাফিজুর রহমান! তাঁর জন্য পুরো বাংলাদেশ অপেক্ষায়। আর তিনি কিনা যাবেন না! কাল সন্ধ্যায় বিসিবি একাডেমি ভবনের সামনে মাইক্রোবাসে সতীর্থরা সবাই উঠে পড়েছেন। কিছুক্ষণের মধ্যে রওনা হতে হবে বিমানবন্দরে। রাত দশটায় সিডনির ফ্লাইট। তৈরি মোস্তাফিজও।images কিন্তু ঠিক গাড়িতে ওঠার আগে বাঁহাতি পেসার বলে বসলেন, ‘আমি যাব না!’ এটা যে স্রেফ রসিকতা, বলে না দিলেও তো চলছে। যেহেতু ঢাকা ডায়নামাইটসের শুভেচ্ছাদূত, তবে কি ফাইনালে দলকে সমর্থন দিতে থেকে যেতে চান? পাল্টা রসিকতায় মোস্তাফিজের জবাব, ‘চাইলে ঠিকই একদিন পরে যেতে পারতাম।’ ‘দ্য ফিজ’ তা চাননি। বাংলাদেশ দলের কাছে বাকি সব তাঁর কাছে তুচ্ছ! কাঁধের চোটে এক, দুই করে পাঁচটি মাস দলের বাইরে। মোস্তাফিজের বোলিং দেখার মধ্যেও একধরনের সৌন্দর্য আছে। যে সৌন্দর্য থেকে বঞ্চিত তাঁর ভক্ত-অনুরক্তরা। তবে সত্যিটা হলো, মোস্তাফিজ নিজেই সবচেয়ে ব্যাকুল মাঠে ফেরার জন্য। কবে নামবেন; কাটার, ইয়র্কার, স্লোয়ারে এলোমেলো করে দেবেন প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের!
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তখন ওয়ানডে সিরিজ চলছে। সতীর্থরা টিম হোটেলে আর মোস্তাফিজ বিসিবি একাডেমি মাঠে, জিমে নিভৃতে, একাগ্রে চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁর পুনর্বাসন। দল খেলছে আর তাঁকে তা দূর থেকে দেখতে হচ্ছে। সেই কষ্টে কিনা পুরো সিরিজে একবারও মাঠে এসে খেলা দেখতেও আসেননি। এই প্রতিবেদকের একটি সাক্ষাৎকারের প্রাণপণ চেষ্টা দেখে নিজেই বলেন, ‘আগে সুস্থ হয়ে উঠি, মনটা ভালো হোক, তখন কথা বলব।’
মোস্তাফিজের মন যে এখন ভালো, সেটি কাল বিমানবন্দরে রওনা হওয়ার আগে বোঝা গেছে। সবার সঙ্গে মজা-ঠাট্টা করছেন। বোঝা যাচ্ছে, মুডে আছেন ফিজ। দীর্ঘ পুনর্বাসন শেষে প্রায় ফিট হয়ে উঠেছেন। ট্রেনার, বিসিবির চিকিৎসকেরা বলছেন, মোস্তাফিজ সামর্থ্যের প্রায় ৯০ ভাগ দিয়ে বল করতে পারছেন। কিন্তু তাঁর হাতে থাকা ‘মারণাস্ত্র’ কাটারগুলো নিয়ে কাজ করা হয়নি। সিডনিতে ১০ দিনের প্রস্তুতি ক্যাম্পেই মোস্তাফিজ শতভাগ ফিট হয়ে যাবেন বলে আশা টিম ম্যানেজমেন্টের।
প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন বলছেন, ‘ওয়ানডেতে না হলেও আশা করি টি-টোয়েন্টি থেকে ওকে দলে পাব। অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পরই বোঝা যাবে তাকে কবে থেকে খেলানো যাবে।’
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসেই হইচই ফেলা দেওয়া মোস্তাফিজ দলে না থাকাটা যে কতটা ক্ষতি, সেটি আজ নিউজিল্যান্ড সফর-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা, ‘সর্বশেষ ইংল্যান্ড সিরিজে আমরা মোস্তাফিজকে পাইনি। কিছুটা হলেও ক্ষতি হয়েছে। ও থাকলে হয়তো দুটি টেস্টই কিংবা ওয়ানডে সিরিজ জিততে পারতাম।’
ওয়ানডে অধিনায়কের মোস্তাফিজকে ফিরে পাওয়ার ব্যাকুলতার আরও একটা কারণ আছে। এক বছরের বেশি সময় ধরে ওয়ানডে দলে নেই মোস্তাফিজ। সর্বশেষ ওয়ানডে ২০১৫ সালের নভেম্বরে। জাতীয় দলের হয়েই সর্বশেষে খেলেছেন গত মার্চে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। এরপর আইপিএল মাতিয়ে কাউন্টি খেলতে গেলেন। সেখানেই ধরা পড়ল চোট। মোস্তাফিজ তখন থেকে ঘরোয়া ক্রিকেটেও নেই।
নিউজিল্যান্ডের এবারের বাংলাদেশ সফরটা অন্য রকম। ঘরের মাঠে টানা একের পর এক সাফল্যের পর সবাই মেনে নিয়েছে, নিজ দেশে বাংলাদেশ এখন ভয়ংকর এক প্রতিপক্ষ। ইয়ান বোথামরা এবার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন, বাংলাদেশ বিদেশের মাটিতে জিতে দেখাক। বাংলাদেশের জন্য নিউজিল্যান্ড সফরটা সেই সুযোগ হয়ে এসেছে। সাম্প্রতিক সাফল্যের সঙ্গে বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলতে পারে ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপের খেলাও।
আর এই গুরুত্বপূর্ণ যাত্রায় দলের সেরা অস্ত্রগুলোর একটিকে ফিরে পাওয়া বাংলাদেশের জন্য অবশ্যই সুখবর। ‘ফিজ’ কবে যে আবার মাঠে নামবেন!

Leave a Reply

%d bloggers like this: