থাই-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল প্রতিনিধির সাথে চিটাগাং চেম্বারের মতবিনিময়

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ইনভেস্টমেন্ট মিশন ফ্রম থাইল্যান্ড বিওআই এবং থাই-বাংলাদেশ বিজনেসPhoto(Thai) কাউন্সিল’র ২১ সদস্যবিশিষ্ট বাণিজ্য প্রতিনিধিদলের সাথে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র এক মতবিনিময় সভা ৩ ফেব্র“য়ারী বিকেলে চিটাগাং চেম্বার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম। এ সময় প্রতিনিধিদলের নেতা থাইল্যান্ড বিওআই’র উপ-মহাসচিব চকেদি কেসাং, থাইল্যান্ডের অনারারী কনসাল আমীর হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, ট্রেড এডভাইজর জসিম ইউ. আহমেদ, চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিম, সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, পরিচালকৃবন্দ ছৈয়দ ছগীর আহমেদ, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, কামাল মোস্তফা চৌধুরী, মাহবুবুল হক চৌধুরী (বাবর), মোঃ জহুরুল আলমসহ বিভিন্ন ট্রেডবডি ও সেক্টরের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। থাই প্রতিনিধিদলকে স্বাগতঃ জানিয়ে চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম চট্টগ্রামে বিদ্যমান ও বাস্তবায়নাধীন বিশেষায়িত শিল্পাঞ্চলে অবকাঠামোগত ও প্রয়োজনীয় ইউটিলিটিজ সুবিধার কারণে জাপান, চায়না, তাইওয়ান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিভিন্ন দেশ ইতোমধ্যে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে উল্লেখ করে সরাসরি বা যৌথভাবে থাই বিনিয়োগের আহবান জানান। এছাড়া চিটাগাং চেম্বার কর্তৃক নির্মিত ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বাংলাদেশের সকল রপ্তানিজাত পণ্যের সমন্বয়ে ডিসপ্লে সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে যার মাধ্যমে বিদেশী ক্রেতা সাধারণ খুব সহজেই তাদের চাহিদা মোতাবেক পণ্য ও রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে প্রয়োজনীয় ধারণা অর্জন ও তথ্য সংগ্রহ করতে পারবেন বলে জানান। প্রতিনিধিদলের নেতা চকেদি কেসাং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বৃহত্তম দু’টি মার্কেট চায়না ও ভারতের মধ্যবর্তী অবস্থানসহ বিদ্যমান বিভিন্ন সম্ভাবনাময় খাত, বিপুল মানবসম্পদ ও সুলভ শ্রম বাজার এবং বৈদেশিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সরকার প্রদত্ত সুবিধাসমূহের কারণে বাংলাদেশ বিনিয়োগের জন্য বিশ্বের অন্যতম আকর্ষণীয় ও আদর্শ স্থান বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি ভবিষ্যতেও দ্বিপাক্ষিক সহায়তা ও বাণিজ্য বৃদ্ধিতে কাজ করে যাওয়ার আশাবাদ করেন। আমীর হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী বলেন-বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে অসংখ্যবার দু’দেশের প্রতিনিধিদল সফর করা সত্ত্বেও দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ক বৃদ্ধিতে আজ পর্যন্ত আশানুরূপ ফলাফল পাওয়া যায়নি। তিনি ফ্রোজেন ফুডসহ সম্ভাবনাময় প্লাষ্টিক পণ্যের আমদানি বৃদ্ধি ও উল্লেখিত খাতে থাই বিনিয়োগের অনুরোধ জানান। ধন্যবাদজ্ঞাপন সূচক বক্তব্যে চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, প্লাষ্টিক, কৃষি খাত ও টায়ার-টিউবসহ বিভিন্ন রাবারজাত পণ্য প্রস্তুতকরণ খাতে অধিক পরিমাণে থাই বিনিয়োগ কামনা করে প্রতিনিধিদলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এছাড়া চেম্বার পরিচালকদ্বয় মাহফুজুল হক শাহ ও আলহাজ্ব মোঃ সিরাজুল ইসলাম, ফ্রোজেন ফুড্স এসোসিয়েশনের মাহমুদুল হাসান, ওশান ইন্টারন্যাশনাল লিঃ এর আতাউল করিম চৌধুরী এবং প্রতিনিধিদলের সদস্যবৃন্দ মুক্ত আলোচনা পর্বে অংশগ্রহণ করেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: