তারুণ্যের উচ্ছ্বাসের অনন্য পরিবেশনা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : ‘ভালবাসি ফুল, মিষ্টি বকুল, ভালবাসি/ নদী কলকল বৃষ্টির জল, ভালবাসি’ ফুলে শোভিত মঞ্চে শিল্পীদের সমবেত উচ্চারণ। অথবা লাল সবুজের রক্তিম মঞ্চে DSC_8077‘আমার স্বদেশ তুমি কেমন আছো’ শিরোনামের বৃন্দ আবৃত্তি। আবার কখনো নীলাভ শ্বেতশুভ্র মঞ্চে শিল্পীদের কন্ঠে ভালবাসার পংক্তিমালা। গত ৩ ফেব্র“য়ারী সন্ধ্যায় নগরীর জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে এমনই কিছু একক ও বৃন্দ পরিবেশনা নিয়ে অনন্য এক আবৃত্তি অনুষ্ঠান হয়ে গেল বাচিক শিল্প চর্চা কেন্দ্র ‘তারুণ্যের উচ্ছ্বাস’ এর আয়োজনে। কবি ও ছড়াকার রাশেদ রউফের কবিতায় DSC_8149অনুষ্ঠানের শিরোনাম ছিল আয় রৌদ্র, আয়রে আমার আলো। অনুষ্ঠনে শিল্পীরা পাঁচটি পর্বে পরিবেশন করেন রাশেদ রউফের শিশুতোষ ছড়া, কিশোর কবিতা, স্বদেশ ও মুক্তিযুদ্ধের কবিতা, ভালবাসার কবিতা এবং সাম্প্র্্রতিক অন্ত্যমিল। অনুষ্ঠানের শুরুতেই ছিল শিশুদের কন্ঠে রাশেদ রউফের ছড়া। শিশুরা একে একে পরিবেশন কবির মনের কাছে, নামের বাহার, পড়ার টেবিল, বিড়াল বটে, রোদেও ডানা, অবাক অবাক শিরোনামের কবিতাগুলো। এ পর্বে একক পরিবেশনায় ছিল আনিকা মারজান, তুর্ণেশা সাহা, DSC_8272ইসরাত জাহান, আল বাকী আকন, স্বাগতা চৌধুরী, ওয়াহিদ সালমান, রাজমনী সেন ও দেবরাজ দেব। মঞ্চে রঙিল কৃত্তিম ফুলের সমারোহের মাঝে শিশুদের পরিবেশনা ছিল চমৎকার। এরপরই ছিল স্বদেশ ও মুক্তিযুদ্ধের কবিতা। মঞ্চের আলো আধাঁরিতে লাল সবুজের আবহে শিল্পীরা শুরুতেই পরিবেশন করেন ‘একাত্তুরের গল্পগাঁথা’ শিরোনামের বৃন্দ পরিবেশনা। এরপর সাইদুর রহমান, অপি দেবী, অর্পিতা মুহুরী, ইভা সাহা, সুষ্মিতা দত্ত এবং আল হাদী পরিবেশন করেন রাশেদ রউফের ধানমন্ডির বুকে ভাষাই ভালবাসা, বাংলাদেশের খোকা তুমি, ইতিহাস, আমার স্পর্ধা আমার অহংকার শিরোনামের কবিতাগুলো। মুক্তিযুদ্ধের কবিতার পরই মঞ্চে কবির কিশোর কবিতা নিয়ে আসে মিফতাহুল জান্নাত, সৌরভী নাথ, কাবেরী দাশ, মৃত্তিকা সাজী, নুসরাত জাহান ও মুনেম শাহরীয়ার। তারা আবৃত্তি করেন ছুটির দিনে, একটি বাংলাদেশ, স্বর্ণকুচি, দুরন্ত স¤্রাট, একটি মেয়ে, মনের কথা শিরোনামের কবিতাগুলো। তাদের পরিবেশনায় আরও ছিল হারিয়ে যাওয়ার নেই মানা শিরোনামের বৃন্দ পরিবেশনা। এ পর্বে মঞ্চ সাজানো হয়েছিল রঙিন ঘুড়ি, প্রজাপতি আর পাখির ওড়াওড়ির আবহে। এরপরই মঞ্চে রাশেদ রউফের সাহিত্যকর্ম নিয়ে আলোচনা করেন বরেণ্য সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন। তিনি আয়োজকদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন ‘এই আয়োজনে DSC_8279আমরা পরিপূর্ণ রাশেদ রউফকে পেয়েছি। শুধু ছোটদের জন্যেই নয়, রাশেদ রউফ যে বড়দের জন্যেও সমানভাবে সিদ্ধহস্তে লিখেছেন আজকের পরিবেশনাগুলোতে তারও প্রমাণ পাওয়া গেল।’ এসময় তারুণ্যের উচ্ছ্বাস সদস্যরা কবি রাশেদ রউফকে অনুষ্ঠান স্মারক উপহার দিয়ে এবং উত্তরীয় পড়িয়ে দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। অনুষ্ঠানের শেষ দুটি পর্ব সাজানো হয়েছিল কবির ভালাবাসার কবিতা ও সাম্প্রতিক অন্ত্যমিল দিয়ে। ভালবাসার কবিতায় আবৃত্তিশিল্পী মুজাহিদুল ইসলাম, সংগীতা দেবী, আলাউদ্দীন মজুমদার, সঞ্জয় সাহা, শিউলী চৌধুরী এবং আশিক উল আলম পরিবেশন করেন অনুরাগ, প্রাণের মানুষ আছে প্রাণে, তোমার জন্যে হাসি, তোমার জন্মদিনে, যে ছুঁয়েছে শুভ্র এ মন শিরোনামের কবিতাগুলো। আর অন্ত্যমিল পর্বে শ্রাবণী দাশগুপ্তা, মিঠু তলাপাত্র, সেঁজুতি দে, রাতুল হাসান ও ইভা চৌধুরী পরিবেশন করেন সুবিধাবাদী, হায় জনগণ, বিপর্যয়, সম্প্রীতি এবং সারকথা শিরোনামের সাপ্্রতিক অন্ত্যমিল। দুটি পর্বেই ছিল প্রাসঙ্গিক ভিন্ন আংগিকের মঞ্চ সজ্জা। আবৃত্তির পর নিজের কবিতা ও সাহিত্য জীবন নিয়ে এবং আয়োজন নিয়ে অনুভূতি জানান কবি রাশেদ রউফ। পুরো অনুষ্ঠানটিতে আবৃত্তির ফাঁকে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম একাডেমীর পরিচালক অধ্যক্ষ আনোয়ারা আলম, সরকারী চারুকলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ রীতা দত্ত, সম্মিলিত আবৃত্তি জোটের সভাপতি আবৃত্তিশিল্পী রণজিৎ রক্ষিত, সাংস্কৃতিক সংগঠক মফিজুর রহমান, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কার্যকরি পরিষদ সদস্য নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু, কবির সহধর্মিনী আবৃত্তিশিল্পী আয়েশা হক শিমু প্রমুখ। অনুষ্ঠানটির পরিকল্পনায় ও সঞ্চালনায় ছিলেন মো: মুজাহিদুল ইসলাম, মঞ্চ ও আলোক পরিকল্পনায় সেজুঁতি দে এবং নির্দেশনায় ছিলেন শ্রাবণী দাশগুপ্তা ও সাইদুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*