ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক এমরান হুসাইন চাকরিচ্যুত

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৮ ডিসেম্বর, বুধবার: যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের এক শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তার নাম এমরান হুসাইন। তিনি ওই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ছিলেন। অভিযোগ উঠার প্রায় ছয় বছর পর এই সিদ্ধান্ত নিলো কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) আখতারুজ্জামান ঢাকাটাইমসকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।
সিন্ডিকেট সদস্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘এমরান হোসাইনের বিরুদ্ধে এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠার পর তাকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো হয়েছিল। তদন্তে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’
সিন্ডিকেট সদস্যরা জানান, ২০১১ সালে বিভাগের মাস্টার্সের এক ছাত্রী এমরান হুসাইনের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তোলেন। এরপর তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত এই ব্যবস্থা নেয়া হলো। অভিযুক্ত শিক্ষকের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোনে তাকে পাওয়া যায়নি।
এছাড়া থিসিস জালিয়াতির অভিযোগে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ওমর ফারুককে সময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সম্প্রতি তুরস্কের হ্যাসিট্টেইপ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপকের পিএইচডি থিসিস হুবহু জালিয়াতির অভিযোগ ওঠে মুহাম্মদ ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে।
হ্যাসিট্টেইপ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাইন পিনার গোজেন আর্চান চলতি বছরের ২০ এপ্রিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান বরাবর এক মেইল বার্তায় তার পিএইচডি থিসিস জালিয়াতির এ অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হবে-জানতে চাইলে অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ‘তদন্ত চলবে। এরপর কী সিদ্ধান্ত হয় তা পরে জানানো হবে।’

Leave a Reply

%d bloggers like this: