ঢাকায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২০ আগস্ট ২০১৯ ইংরেজী, মঙ্গলবার: ঢাকায় পৌঁছেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। মঙ্গলবার বিকাল পাঁচটার দিকে তিনি রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান। আপাতত তিনি থাকবেন গুলশানের আমারি পাঁচ তারকা হোটেলে। পরে তারা বাসা ঠিক হলে তিনি বাসায় উঠবেন। আগামীকাল (বুধবার) টাইগারদের অনুশীলন ক্যাম্প দেখতে মিরপুরে যাবেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালেই ঢাকায় পৌঁছেছেন টাইগারদের নতুন পেস বোলিং কোচ চার্লস ল্যাঙ্গাভেল্ট। এই দুজনই দক্ষিণ আফ্রিকার নাগরিক। সম্প্রতি বিশ্বকাপ শেষে টাইগারদের প্রধান কোচের দায়িত্ব ছাড়েন স্টিভ রোডস। দায়িত্ব ছাড়েন পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশও। সেই শূন্য পদে যোগ দিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার এই দুজন।

হেড কোচের শর্টলিস্টে ডমিঙ্গোর সঙ্গে ছিলেন নিউজিল্যান্ডের মাইক হেসন। কিন্তু হেসনকে আনতে হলে বিসিবিকে প্রতি মাসে প্রায় ৫০ হাজার ডলার গুনতে হতো। যা অনেকটা কঠিনই ছিল। এছাড়া মাহেলা জয়াবর্ধেনে, মিকি আর্থার এবং গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার টাইগারদের কোচ হতে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন।

২০১১ সালের জুনে দক্ষিণ আফ্রিকার হেড কোচ হিসেবে নিয়োগ পান গ্যারি কারস্টেন। সে সময় সহকারী কোচ হন ডমিঙ্গো। ২০১২ সালের ডিসেম্বরে কারস্টেনের কাছ থেকে কেবল টি-টোয়েন্টি কোচের দায়িত্ব বুঝে নেন তিনি।

২০১৩ সালের মে মাসে কারস্টেন ঘোষণা দেন জুলাইয়ের শেষের দিকে প্রোটিয়া হেড কোচের দায়িত্ব ছেড়ে দেবেন। তারপরই কারস্টেনের স্থলাভিষিক্ত হন ডমিঙ্গো।

হেড কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২০১৪ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে তুলেন ডমিঙ্গো। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে তার সঙ্গে চুক্তি আরও দুই বছর বাড়ায় প্রোটিয়ারা। ডমিঙ্গোর কোচিংয়েই ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে দক্ষিণ আফ্রিকা।

প্রায় চার বছর দায়িত্ব পালনের পর ২০১৭ সালের আগস্টে এসে ডমিঙ্গোকে সরিয়ে নতুন হেড কোচ হিসেবে ওটিস গিবসনকে নিয়োগ দেয় প্রোটিয়ারা। তবে ডমিঙ্গোকে ঠিকই নিজেদের কাছে রেখে দেয় তারা, দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলের দায়িত্ব। সেখান থেকেই এবার বাংলাদেশ শিবিরে যোগ দিলেন অভিজ্ঞ এই কোচ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*