ড্র হলো খুলনা টেস্ট

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : স্বাগতিক বাংলাদেশ ও সফরকারী পাকিস্তানের মধ্যকার দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্র হয়েছে। খুলনা টেস্টের শনিবার ম্যাচের পঞ্চম ও শেষ দিনের শেষmatch সেশনে বাংলাদেশ নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেট ৫৫৫ রান করার পর দুই দলের অধিনায়করা ড্র মেনে নিলে খেলার সমাপ্তি ঘটে। শেষ পর্যন্ত সাকিব আল হাসান ৭৬ রানে ও শুভাগত হোম ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন। বিনা উইকেটে ২৭৩ রান তুলে ম্যাচের চতুর্থ দিন শেষ করা বাংলাদেশ পঞ্চম ও শেষ দিন শনিবার সকালে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ফের ব্যাট করতে নামে। আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান এদিন দলীয় সংগ্রহে যোগ করেন ৩৯ রান। আর তাতে টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় ইনিংসে উদ্বোধনী জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েন তামিম ও ইমরুল। দলীয় ৩১২ রানে ইমরুলকে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে জুটি ভাঙ্গেন পাকিস্তানি স্পিনার জুলফিকার বাবর। বদলি ফিল্ডার বাবর আজমের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ১৬টি চার ও ৩টি ছয়ের সাহায্যে ইমরুল খেলেন ১৫০ রানের অসাধারণ ইনিংস। এরপর দলীয় ৩৪৫ রানে বাংলাদেশের দ্বিতীয় উইকেটের পতন হয়। ২১ রান করা মুমিনুল হককে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে পাকিস্তান শিবিরে দিনের দ্বিতীয় সাফল্য এনে দেন পাকিস্তানি পেসার জুনাইদ খান। টেস্টে ক্যারিয়ারের প্রথম দ্বিতশক হাঁকিয়ে দলীয় ৩৯৯ রানে সাজঘরে ফেরেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। মোহাম্মদ হাফিজের বলে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে তামিম খেলেন ২০৬ রানের ইনিংস। ১৭টি চার ও ৭টি ছয়ে সাজানো তার এই অসাধারণ ইনিংসটি টেস্টে বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যানের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। এরপর চা-বিরতির পর তৃতীয় সেশনে ব্যাটিংয়ে নেমে পরপর দুই ওভারে মাহমুদুল্লাহ ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ৪৬৩ রানে মাহমুদুল্লাহকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরান পেসার জুনাইদ খান। মাহমুদুল্লাহ করেন ৪০ রান। পরের ওভারে বোলিংয়ে এসে অধিনায়ক মুশফিককে ফেরান পাকিস্তানি স্পিনার মোহাম্মদ হাফিজ। এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরার আগে মুশফিক কোনো রান করতে পারেননি। দলীয় ৫২৪ রানে সৌম্য সরকার আউট হলে বাংলাদেশের ষষ্ঠ উইকেটে পতন হয়। আসাদ শফিকের বলে মোহাম্মদ হাফিজের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে এই ম্যাচে টেস্ট অভিষেক হওয়া সৌম্য করেন ৩৩ রান। দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে চতুর্থ দিনের মধ্যাহ্ন বিরতির কিছুক্ষণ আগে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানকে ৬২৮ রানে গুটিয়ে দেয় বাংলাদেশ। এতে প্রথম ইনিংসে ২৯৬ রানের লিড পায় সফরকারীরা। পাকিস্তানের পক্ষে প্রথম ইনিংসে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজ তুলে নেন তার টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম দ্বিশতক। তিনি শেষ পর্যন্ত ২২৪ রানে আউট হন। এছাড়া প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের পক্ষে আজহার আলি ৮৩, আসাদ শফিক ৮৩, সরফরাজ আহমেদ ৮২ ও অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক ৫৯ রান করেন। স্বাগতিকদের পক্ষে তাইজুল ১৬৩ রানে ৬ উইকেট শিকার করেন। এরপর ২৯৬ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে অপরাজিত থাকেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ও ইমরুল। ৬১ ওভার ব্যাট করে তারা করেন ২৭৩ রান। গত মঙ্গলবার খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া এই ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। ব্যাট করতে নেমে সবক’টি উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৩৩২ রান তোলে স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮০ রান করেন মুমিনুল হক। এছাড়া ইমরুল কায়েস ৫১ ও মাহমুদুল্লাহ ৪৯ রান করেন। প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের পক্ষে ওয়াহাব রিয়াজ ও ইয়াসির শাহ ৩টি করে এবং মোহাম্মদ হাফিজ ও জুলফিকার বাবর দুটি করে উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর বাংলাদেশ : প্রথম ইনিংস ৩৩২/১০
পাকিস্তান : প্রথম ইনিংস ৬২৮/১০, ওভার ১৬৪.৪ (হাফিজ ২২৪, আজহার ৮৩, মিসবাহ ৫৯, আসাদ ৮৩, সরফরাজ ৮২, ইউনিস ৩৩; তাইজুল ৬/১৬৩, শুভাগত ২/১২০)।
বাংলাদেশ : দ্বিতীয় ইনিংস, ৫৫৫/৬, ওভার ১৩৬ (তামিম ২০৬, ইমরুল ১৫০, সাকিব ৭৬*; হাফিজ ২/৮২, জুনায়েদ ২/৮৮) ফল : ম্যাচ ড্র (দুই ম্যাচের সিরিজে ০-০ সমতা) সূত্র : শীর্ষ নিউজডটকম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*