টেকনাফে বেড়ে গেছে হুন্ডি ও জাল টাকার ব্যবসা

অজিত কুমার দাশ হিমু, কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেJal Takaলায় আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে হুন্ডি ও জাল টাকার ব্যবসা। এ কাজে জড়িত রয়েছে অর্ধ শতাধিক রোহিঙ্গাসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে থাকা লোকজনদের আত্বীয়-স্বজন ও সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র। এর মাধ্যমে সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। তবে ধরাঁেছায়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে হুন্ডি ব্যবসায়ী নামে পরিচিত মূল হোতারা। খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ওইসব হুন্ডি ব্যবসায়ীরা প্রতিনিয়ত চালিয়ে যাচ্ছে অবৈধ পন্থায় এই ব্যবসা। এদিকে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের শত শত রোহিঙ্গা নাগরিকসহ দেশের লাখ লাখ মানুষ অবস্থান করছে মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, সৌদিআরব, দুবাই, ইতালি, জার্মান, কাতার, জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে। তাদের আত্মীয়-পরিজনরা বর্তমানে টেকনাফের বিভিন্ন লোকালয়ে অবৈধভাবে এবং শরণার্থী হিসেবে বসবাস করার ফলে প্রতিদিন বিদেশ থেকে প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রা হুন্ডির মাধ্যমে লেনদেন করা হচ্ছে। এদিকে দীর্ঘদিন ধরে অবাধে হুন্ডি ব্যবসা চালিয়ে গেলেও গডফাদাররা যে কোন বিনিময়ে ছাড় পেয়ে যাচ্ছে। তাদের মানি লন্ডারিং আইন প্রয়োগ করার বিধিবিধান থাকলেও এর যথাযথ ব্যবহার বা প্রয়োগ হচ্ছে না। একাধিক সূত্রে জানা গেছে, টেকনাফে প্রায় প্রতিদিন কোটি কোটি টাকা হুন্ডির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন হচ্ছে। এ খবরে বিস্তারিত তথ্য, চক্রের সদস্য তালিকা ও ডলার পাচারকারীদের ব্যাপারে উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মুজাহিদ উদ্দিন জানান, হুন্ডি ব্যবসা প্রতিরোধ করতে উপজেলা প্রশাসন থেকে ব্যাংক বরাবর হুন্ডি ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করতে বলা হয়েছে। গোয়েন্দা নজরদারীর পাশাপাশি পুলিশকেও ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হুন্ডি ব্যবসায়ীদের তালিকা তৈরী করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে সরকারকে রাজস্ব ঘাটতির হাত থেকে বাঁচাতে হবে। এতে প্রশাসনের জোড়ালো হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

Leave a Reply

%d bloggers like this: