জয় বাংলা শিল্পীগোষ্ঠী চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ৩১ জুলাই, রবিবার: জয় বাংলা শিল্পী গোষ্ঠী, চট্টগ্রাম এর উদ্যোগে বাঙ্গালী সংস্কৃতি উৎসব উপলক্ষে এক শিশু-কিশোর চিত্রাংকন ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা শুক্রবার বিকাল ৩টায় কদম মোবারক ইসলামাবাদী মেমোরিয়াল হলে অনুষ্ঠিত হয়। বিপুল সংখ্যক প্রতিযোগি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এতে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন শিল্পী অচিন্ত্য কুমার দাশ, কাকলী দাশগুপ্তাJoy Bangla Shilpi Goshti news sajal das 31 July pic ও সুচনা বণিক। তবলায় ছিলেন অক্ষয় দাশ। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন সজল দাশ। সন্ধ্যা ৭টায় পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট ধর্মতত্ত্ববিদ ও সমাজ চিন্তাবিদ অধ্যাপক স্বদেশ চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির আসন অলংকিত করেন সাবেক সহকারী জজ, প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক এড. মনজুর মাহমুদ খান, উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক মুক্তবাণীর প্রকাশক ও সম্পাদক, নারী নেত্রী ববিতা বড়–য়া। প্রধান আলোচক হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ কৃষকলীগ চট্টগ্রাম মহানগর এর যুগ্ম আহক্ষায়ক এড. মোস্তফা আনোয়ারুল ইসলাম। বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা মেলা পরিষদ চট্টগ্রামের যুগ্ম মহাসচিব মো. জসীম উদ্দীন চৌধুরী, যুবলীগ নেতা ও সংগঠক সিজার বড়–য়া, বিশিষ্ট আবৃত্তিকার মো. মছরুর হোসেন ও মানবাধিকার সংগঠক ডা.আর কে রুবেল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি সজল দাশ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংগঠক দিলীপ সেনগুপ্ত, সংগঠক আসিফ ইকবাল, নারায়ন দাশ ও শান্তা পাল। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত হোসেন, সাংস্কৃতিক সংগঠক নজরুল ইসলাম মোস্তাফিজ, সংস্কৃতিকর্মী রতন ঘোষ, রোকন উদ্দিন আহম্মদ, কামাল উদ্দিন, রতন ভট্টাচার্য্য, শিমুল বড়–য়া ও আমির হামজা প্রমুখ। আবৃত্তি পরিবেশন করেন জান্নাতুল ফেরদৌস আঁখি ও রেহানা আক্তার এ্যানি (মুুক্তধক্ষনি), অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন সজল দাশ ও দিলীপ সেনগুপ্ত। প্রধান অতিথি বলেন বাঙ্গালী সংস্কৃতি আবহমান কালের সংস্কৃতি। প্রতিটি দেশের, প্রতিটি নাগরিকের কাছে তার সংস্কৃতি অমূল্য সম্পদ। সুতরাং আমাদের দেশীয় সংস্কৃতিকে বিশ্বদরবারে তুলে ধরতে হবে। আমরা কোন অবস্থাতেই যেন বিজাতীয় সংস্কৃতির কবলে পড়ে, নিজস্ব সংস্কৃতিকে হারিয়ে না ফেলি। সংস্কৃতি হচ্ছে, একটি শক্তিশালী মাধ্যম। যার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের সাথে মেলবন্ধন রচনা করা যায়। তিনি শিশু-কিশোরদের লেখাপড়ার সাথে সাথে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য পরামর্শ দেন এবং অভিভাবকদের আরো এই ব্যাপারে সচেতন হওয়ার আহক্ষান জানান। উদ্বোধক ববিতা বড়–য়া বলেন, প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শিশুদের মেধার বিকাশ ঘটে। বর্তমানে দেশে যে ক্রান্তিকাল অর্থাৎ জঙ্গিবাদী তান্ডব চলছে। সেই থেকে পরিত্রানের জন্য সুস্থ সংস্কৃতি চর্চার কোন বিকল্প নেই। বক্তারা বলেন, দেশজুড়ে যেই ভাবে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটেছে তার জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কিছু সংখ্যক রাজনৈতিক দল দায়ী। তারা অতীতে নিজের স্বার্থের কারণে এদের আশ্রয় ও প্রশ্রয় দিয়েছে। বক্তারা বাঙ্গালী সংস্কৃতি চর্চায় বিভিন্ন সংগঠনকে এগিয়ে আসার আহক্ষান জানান। কারণ এতে সমাজ, দেশ ও জাতি উপকৃত হবে। সভার সভাপতি জয় বাংলা শিল্পীগোষ্ঠীর পক্ষ থেকে বাঙ্গালী সংস্কৃতিক উৎসব আয়োজনের জন্য সংগঠনের কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং সাথে সাথে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য প্রতিযোগিদের শুভেচ্ছা জানান। পরে প্রধান অতিথি অতিথিদের সাথে নিয়ে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে ক্রেস্ট ও অংশগ্রহণকারীদের বিশেষ পুরষ্কার ও সার্টিফিকেট প্রদান করেন। অনুষ্ঠানটির সৌজন্যে ছিলেন বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক, সংগঠক ও সমাজসেবক শেখ মুজিব আহমেদ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: