জাহাঁগিরিয়ার জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিল

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১১ ডিসেম্বর, রবিবার: জাহাঁগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া ট্রাস্ট আয়োজিত জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলে বক্তারা বলেছেন, প্রিয় নবী (দ.) এর শুভাগমনে মানবজাতি শাশ্বত সত্য ও মুক্তির দিশা পেয়েছে। মানব জাতি হয়েছে ধন্য। মানবজাতির কল্যাণে পবিত্র ইসলাম ধর্ম নিবেদিত হয়েছে। দেশ ও সমাজে বিরাজিত অনাচার, অবক্ষয়-নৈরাজ্য-শোষণ-নিপীড়ন news-11-12-16থেকে বাঁচতে হলে হক্কানি, অলি-আল্লাহ প্রেমিক বুজুরগদের দেখানো পথে চলতে হবে। জনকল্যাণে, জনসেবা ও রাষ্ট্রীয় সমৃদ্ধি অর্জনে আলেম সমাজকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। প্রিয়নবী (দ.) এর জীবনাদর্শ পূর্ণাঙ্গ অনুসরণ ছাড়া মানুষের জীবনে শান্তি ও সাফল্য আসবে না। ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ, অর্থনৈতিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনসহ সকল পর্যায়ে ইসলামী নির্দেশনা অনুসরণ এবং প্রিয় নবী (দ.) এর প্রদর্শিত পথ অনুসরণ করে চলতে হবে। পবিত্র কোরআন ও হাদিসের আলোকে নিজেদেরকে জড়িয়ে রাখতে হবে। আল্লাহ্র নিকট থেকে রাসূল (দ.) আত্মশুদ্ধি, হেদায়ত এবং মোমিনের জন্য রহমত হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন রাসূল (দ.) কে বলেছেন, হে হাবিব আপনি ঘোষণা করুন, তাঁরই (আল্লাহ্র) মেহেরবানী এবং রহমতের আবির্ভাব উপলক্ষে তোমাদের খুশী উদযাপন করা একান্ত আবশ্যক। একথা থেকে সুষ্পষ্ট হয় যে, উপদেশ, আত্মার পরিশুদ্ধি, হেদায়াত এবং আল্লাহ্র অনুগ্রহ সব কিছুর জন্য রাসূল (দ.) এর আবির্ভাবেরই ফলশ্র“তি। কাজেই রাসূল (দ.) এর পবিত্র সত্তার আবির্ভাব উপলক্ষে যতই খুশী উদযাপন করা হোক না কেন, তা প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্ত অপ্রতুল। ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) বা এ ধরণের খুশী উদযাপন তারাই নাজায়েজ বা তাচ্ছিল্য করতে পারে; যারা রাসূলের (দ.) আবির্ভাবে অসন্তুষ্ট। বক্তারা আরো বলেছেন, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উদযাপনের মাধ্যমে মোমিন মুসলমানদের ইমানী পথকে আরো সুন্দরভাবে গড়িয়ে তুলতে পারবে। বক্তারা জাহাঁগিরিয়া শাহসুফী মমতাজিয়া ট্রাস্টকে জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) চন্দনাইশ থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ব্যাপক আকারে পালনের জন্য ধন্যবাদ জানান। আনজুমান-এ-জাহাঁগিরিয়া শাহ্সুফি মমতাজিয়া ট্রাস্ট এর উদ্যোগে পবিত্র ১২ রবিউল আউয়াল উদযাপন উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগরীর ঐতিহাসিক মুসলিম হলে ১১ ডিসেম্বর রবিবার ২০১৬ সকাল ১০টায় জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) শীর্ষক আলোচনা সভা জাহাঁগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন কুতুবে আলম, রাহনুমায়ে শরীয়ত ও ত্বরীকত, ওয়ারেছুল আম্বিয়া, সুলতানুল আউলিয়া, হাজত রাওয়া, মুশকিল কুশা, নূরে জাহাঁগিরি হযরতুলহাজ্ব আল্লামা শাহসুফি সৈয়দ মোহাম্মদ আলী (মা.জি.আ.) এর সভাপতিত্বে মহাসমারোহে অনুষ্ঠিত হয়। চন্দনাইশস্থ কাঞ্চননগর জাহাঁগিরিয়া দরবার শরীফ থেকে শতশত মোটর শোভা যাত্রায় হাজার হাজার লোকের অংশগ্রহণে জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর জুলুসের মাধ্যমে দক্ষিণ চট্টগ্রাম অতিক্রম করে নগরীর মুসলিম হলে উপস্থিতি হন হাজার হাজার জাহাঁগিরিয়া বক্ত, অনুরাগীবৃন্দ। মুসলিম হলের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও চন্দনাইশ-সাতকানিয়া এলাকার নির্বাচিত মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি, আহলে সুন্নাত সমন্বয় কমিটি প্রধান সমন্বয়ক আল্লামা এম.এ মতিন। প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক আল্লামা মুফতি ড. আবদুল্লাহ আল মারুফ মুহাম্মদ শাহ্ আলম। আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবদুল জব্বার চৌধুরী, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনি, চন্দনাইশ পৌরসভার মেয়র মাহবুবুল আলম খোকা, আনজুমান-এ-জাহাঁগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া ট্রাস্ট এর নির্বাহী পরিচালক পীরজাদা মাওলানা মুহাম্মদ মতি মিয়া মনছুর, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক, চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবদুর রহিম বাদশা, কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান, কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আবছার, কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়াম্যান আবদুল শুক্কুর, ছোবাহানিয়া আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ, মাদ্রাসা-এ-তৈয়বিয়া অদুদিয়া সুন্নিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ এস.এম ইকবাল মোজাদ্দেদি, জাহাঁগিরিয়া সুফিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ পীরজাদা খাজা মুহাম্মদ মোবারক আলী, উপাধ্যক্ষ পীরজাদা মাওলানা মুহাম্মদ মনজুর আলী, আল্লামা মীর মুহাম্মদ আলাউদ্দিন আল কাদেরী, হাসনদন্ডী এম রহমান সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আল্লামা আমিনুল ইসলাম সমদী, আল্লামা মুফতি মুহাম্মদ ইকবাল হোসাইন মমতাজি, মাওলানা মুহাম্মদ জহিরুল আলম জেহাদী, মাওলানা মুহাম্মদ গোলাম রব্বানী, মুফতি আলী আহমেদ মমতাজি, মাওলানা মুহাম্মদ আবু সাইদ চৌধুরী, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও সংগঠক স.উ.ম আবদুস সামাদ, সৈয়দ সিহাব উদ্দিন আলম, শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ আবু তালেব বেলাল, বিশিষ্ট কলামিষ্ট ও গবেষক অধ্যাপক মাসুম চৌধুরী, ইসলামীয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যাপক মুহাম্মদ মুছা কলিমুল্লাহ, প্রাইম এশিয়া ইউনিভাসিটির ডিন ড. মুহাম্মদ নাসির উদ্দিন, ফুর্তি টিভির চেয়ারম্যান এ.আর হাসনাইন, চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি সোহেল মুহাম্মদ ফখরুদ-দীন, বিশিষ্ট কলামিষ্ট আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবদুর রহিম, ইসলামী চিন্তাবিদ সৈয়দ মুহাম্মদ আমান উল্লাহ আমান সমরকান্দি, ইসলামী চিন্তাবিদ মাস্টার মোঃ আবুল হোসেন, ইসলামী চিন্তাবিদ মুহাম্মদ ফয়েজ উল্লাহ খতিবি প্রমূখ। মাহফিল শেষে দেশ-জাতি ও মানবতার কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করেন পীর ছাহেব আল্লামা শাহসুফি সৈয়দ মোহাম্মদ আলী (মা.জি.আ.)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*