‘জাতীয় কমিশন গঠনের দাবি’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ২৯ মার্চ ২০১৯ ইংরেজী, শুক্রবার: অগ্নিদুর্ঘটনা এড়াতে জাতীয় কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, ‘একের পর বহুতল ভবনে মারাত্মক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে। এসব ঘটনা এড়াতে সরকারের কাছে আমি জাতীয় কমিশন গঠনের দাবি জানাচ্ছি। এই কমিশনে ইমারত বিশেষজ্ঞসহ সংশ্লিষ্টদের রাখতে হবে।’
শুক্রবার সকালে বনানীর কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউয়ে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত এফ আর টাওয়ার পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের সামনে এসব কথা বলেন তিনি। বহুতল ভবন তৈরিতে প্রয়োজনীয় আইন মানা হচ্ছে কি না, তা খতিয়ে দেখার আহ্বান জানান তিনি।
এফ আর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড এবং ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনার তদন্ত যেন যেনতেনভাবে করা না হয় সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখার আহ্বান জানান তিনি। প্রবীন এই আইনজীবী বলেন, ‘সুনির্দিষ্টভাবে তদন্ত করে অপরাধীদের বের করতে হবে। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি এড়াতে হবে।’
গতকাল দুপুরে বনানীর এফ আর টাওয়ারে আগুন লেগে ২৫ জনের মতো মানুষ মারা যায়। আহত হন আরও ৭৩ জন। আগুন লাগার ঘটনায় পাঁচটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
অগ্নিদুর্ঘটনা এড়াতে জাতীয় কমিশন গঠনের আহ্বান জানিয়ে গণফোরাম সভাপতি বলেন, ‘সরকার যে কমিটি তৈরি করবে এতে যেন ইঞ্জিনিয়ার ও বড় মাপের স্থপতি থাকেন। তারা পরামর্শ দেবেন কীভাবে বিল্ডিং তৈরি করার সময় ফায়ার এক্সিট থাকতে হবে। এছাড়া এখন যে বিল্ডিংগুলো আছে সেগুলোর বর্তমান অবস্থাও তারা মূল্যায়ন করবেন।’
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষ নেতা বলেন, ‘কিভাবে মানুষ আগুন থেকে বাঁচতে ঝাঁপ দিয়েছে, দেখলে সহ্য করা যায় না। এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে গেল। এখন এ বিষয়ে ভালোভাবে তদন্ত হওয়া দরকার। ভবনটি নির্মাণের ক্ষেত্রে আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা, সেটি খতিয়ে দেখতে কমিশন গঠন করা দরকার। বিল্ডিং কোড দেখতে হবে, বিল্ডিং প্ল্যান দেখতে হবে। আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা সবই খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিতে হবে।’
এক প্রশ্নে ড. কামাল বলেন, ‘আমরা তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি, এখানেই থেমে থাকবো না। অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনটির নকশায় কি ছিল, কারা কীভাবে অনুমোদন দিয়েছে, অনুমোদন দেয়ার ক্ষেত্রে চোখ বন্ধ করে দিয়েছিল নাকি বুঝে-শুনে দিয়েছে- এক্ষেত্রে যেসব প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব রয়েছে সেগুলো আমরা খতিয়ে দেখব। আপনাদের কারো কাছে কোনো তথ্য থাকলে তা আমাদের দিয়ে সহায়তা করবেন।’
ভবন নির্মাণের নীতিমালা নিয়ে ড. কামাল বলেন, ‘বিদেশে আইন আছে ১০-১২ তলা বিল্ডিং নির্মাণ করতে হলে ফায়ার এক্সিট থাকতে হয়। কিন্তু এখানে অবাক হওয়ার মতো দুর্ঘটনা ঘটছে, মানুষ মারা গেছে, কিন্তু কোনো ফায়ার এক্সিট পয়েন্ট ছিল না।’

Leave a Reply

%d bloggers like this: