চুয়াডাঙ্গায় পুলিশ কনস্টেবলের ছুরিকাঘাতে শাশুড়ির মৃত্যু

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ০৮ জুন ২০১৯, শনিবার: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় এক পুলিশ কনস্টেবলের ছুরিকাঘাতে শাশুড়ি শেফালী অধিকারীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। আহত হয়েছেন তার স্ত্রী ফাল্গুনী অধিকারী ও শ্যালক আনন্দ অধিকারী। শনিবার ভোরে আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের মাদ্রাসাপাড়ায় এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে কনস্টেবল অসীম ভট্টাচার্য। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, চুয়াডাঙ্গা সিআইডিতে কর্মরত কনস্টেবল অসীম অধিকারী দীর্ঘদিন ধরে আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের মাদ্রাসাপাড়ায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। তার বাড়ির সামনেই শ্বশুর-শাশুড়ির বাড়ি। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে আলমডাঙ্গা থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান জানান, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে অসীম ও ফাল্গুনী দম্পতির মধ্যে মাঝেমধ্যেই বিরোধ তৈরি হতো। শনিবার ভোরেও তাদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এক পর্যায়ে রাগান্বিত হয়ে স্ত্রী ফাল্গুনী অধিকারী পাশেই বাবার বাড়িতে চলে যায়। আহত আনন্দ অধিকারী জানান, ‘দিদি আমাদের বাড়িতে আসার কিছুক্ষণ পরই অসীম (জামাই বাবু) আমাদের বাড়িতে আসে। দিদি গেট খুলতেই তাকে উপর্যুপুরী ছুরিকাঘাত শুরু করে অসীম। মা শেফালী অধিকারী ও আমি ছুটে গেলে আমাদেরকেও ছুরিকাঘাত করা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় আমার মায়ের।’ চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কলিমুল্লাহ জানান, খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়। গুরুতর আহত ফাল্গুনী ও আনন্দকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে কনস্টেবল অসীম। চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান পিপিএম (বার) ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, ‘পুরো বিষয়টি একটু জটিল মনে হচ্ছে। তবে এটি পরিষ্কার যে ওই দম্পতির মধ্যে কলহ ছিল। অসীমকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।’

Leave a Reply

%d bloggers like this: