চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কোকো

নিউজগার্ডেন ডেস্ক : বনানী সিটি করপোরেশন কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো।coco মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টা ৫৩ মিনিটের দিকে বনানী সিটি করপোরেশন কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। এ সময় আরাফাত রহমান কোকোর দাফন পরবর্তী মোনাজাতে অংশ গ্রহণ করেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার শাজাহান ওমর, আলহাজ মোসাদ্দেক আলী ফালু, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক গিয়াস কাদের চৌধুরীসহ বিএনপি নেতৃবৃন্দ  প্রমুখ। এর আগে সন্ধ্যা ৬ টা ১০ মিনিটে তার লাশ বনানী সিটি করপোরেশন কবরস্থানের গেইটে পৌঁছায়। এরপর সাড়ে ৬ টার দিকে দাফন শুরু হয়। আসরের নামাজের কিছু সময় পর বিকেল ৫টা ১২ মিনিটে শুরু হয়ে ৫টা ১৪ মিনিটে বায়তুল মোকাররম মসজিদে তার জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজায় ইমামতি করেন জাতীয় মসজিদের খতিব মাওলানা সালাহউদ্দিন আহমেদ। জানাজার পর তার মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সর্বস্তরের মানুষ। এরপর কোকোকে বহনকারী আলিফ মেডিকেল সার্ভিসের অ্যাম্বুলেন্সটি বনানী কবর স্থানের পথে রওয়ানা হয়। মঙ্গলবার কোকোর জানাজায় অংশ নিতে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম প্রাঙ্গণে বিপুলসংখ্যক মানুষ সমবেত হন। এসময় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রায় সবাই বায়তুল মোকাররমে উপস্থিত হন। এছাড়া শিক্ষক, সাংবাদিক, আইনজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষ বায়তুল মোকাররম এলাকায় সমবেত হন। এদিকে জানাজার আগে বায়তুল মোকাররম এলাকায় পুলিশের নির্দেশে সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়। এসময় বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেট থেকে পল্টন মোড়, দৈনিক বাংলা মোড় ও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এলাকায়ও হাজারো মানুষ সমবেত হয়। এদিকে ঢাকা ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর থেকে অসংখ্য মানুষ জানাজায় অংশ নেন বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: