চন্দনাইশকে আধুনিক ও মডেল পৌরসভা গঠনের প্রতিশ্র“তি মেয়র প্রার্থীদের

চন্দনাইশ প্রতিনিধি: চন্দনাইশ সদরস্থ শাহ আমিন পার্কে ‘সুজন’-সুশাসনের জন্য নাগরিক, চট্টগ্রাম জেলা কমিটির উদ্যোগে ও চট্টগ্রামস্থ চন্দনাইশ ছাত্র সমিতির সহযোগিতায় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী সকল মেয়র পদপ্রার্থীকে একই মঞ্চে এনে ‘জনগণের মুখোমুখি’ অনুষ্ঠান গতকাল ২৪ ডিসেম্বর’ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সুজন, চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন চন্দনাইশ ছাত্র সমিতির সভাপতি নোমান উল্লাহ বাহার। Chandanaish Pic from-01
চন্দনাইশ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী মেয়র প্রার্থীরা একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে সকলেই নতুন, আধুনিক এবং মডেল পৌরসভা গঠনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন উপস্থিত ভোটারদের। এ সময় মেয়র প্রার্থীরা উপস্থিত ভোটারদের তাৎক্ষণিকভাবে করা নানা প্রশ্নেরও জবাব দেন। গতকাল ২৪ ডিসেম্বর বিকেলে চন্দনাইশ উপজেলা সদরস্থ শাহ আমিন পৌরপার্কে সুজন (সুশাসনের জন্য নাগরিক) আয়োজিত জনগণের মুখোমুখি শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে মেয়র প্রার্থীরা তাদের ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা জনগণের উদ্দেশ্যে তুলে ধরেন।
অনুষ্ঠানের শুরুতে ভবিষ্যতে মেয়র নির্বাচিত হলে নিজের কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন এবারে চন্দনাইশ পৌরসভায় একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী জসীম উদ্দীন আহমেদ ( প্রতীক- জগ)। তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে তার পরিকল্পনায় চন্দনাইশ পৌরসভাকে আধুনিক এবং দুর্নীতিমুক্ত পৌরসভায় রূপান্তরের পরিকল্পনা তার রয়েছে। বিগত সময়ে পৌরসভায় উল্লেখযোগ্য কোন উন্নয়ন হয়নি উল্লেখ করে বলেন, তিনি রাস্তাঘাটসহ পুরো পৌরসভাকে মডেল পৌরসভায় রূপান্তরিত করবেন। এ কারণে তাকেই নির্বাচিত করার আহ্বান জানান। বক্তব্য শেষে উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি জনগণের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এরপরে উপস্থিত জনতার সামনে দাঁড়ান আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাহাবুবুল আলম খোকা (নৌকা)। তিনি তার বক্তৃতায় বিগত সময়ে পৌরসভার দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি উল্লেখ করে বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে পৌরসভাকে একটি আধুনিক এবং ডিজিটাল পৌরসভা বিনির্মাণের পাশাপাশি সকল স্তরে উন্নয়ন তরান্বিত করে পৌরবাসীকে নাগরিক সুবিধা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। তিনি তার বিরুদ্ধে দেশের কোথাও কোন মামলা নেই উল্লেখ করে বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে সরকারের সাথে নিবিড় সম্পর্কের মাধ্যমে পৌরসভাকে একটি আধুনিক নগরীতে পরিণত করবেন। আর আধুনিক নগরীর কাঙিক্ষত স্বপ্ন বাস্তবায়নে ৩০ ডিসেম্বর তাকে বেছে নেয়ার জন্য ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানান। বক্তব্য প্রদান শেষে তিনিও উপস্থিত জনতার বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এরপরে বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মুহাম্মদ আবদুল হাকিম (প্রতীক-মোমবাতি)। তিনি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, তিনি নির্বাচিত হলে জনগণের সাথে আলাপ করে এবং তাদের মাধ্যমে সমস্যা চিহ্নিত করেই পৌরসভাকে সাজাবেন এবং পঞ্জীভূত সমস্যা সমাধানে তৎপর হবেন। এছাড়া পৌরসভার মধ্যে গণশৌচাগার এবং পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন করবেন। তিনিও তার বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই উল্লেখ করে বলেন, পৌরসভার দীঘদিনের জমে থাকা সমস্যা সমাধানে আগামী ৩০ ডিসেম্বর তাকে নির্বাচিত করারও আহ্বান জানান। এরপরে জনতার মুখোমুখি হন এলডিপি মনোনীত প্রার্থী এবং বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ আইয়ুব (প্রতীক-ছাতা)। তিনি বলেন, দুই দুইবার মেয়াদে মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালনকালে তিনি যতটুকু সরকারি বরাদ্দ পেয়েছেন ততটুকু কাজ করেছেন। তার সময়ে পৌরসভায় এসে কেউ কখনো হয়রানি বা নির্যাতনের শিকার হননি। বর্তমানেও তার উন্নয়ন কাজ অব্যাহত আছে এবং এসব অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করতে তিনি আবারো প্রার্থী হয়েছেন। তিনি কখনো দেশের কোথাও কোন মামলার আসামি বা কোন ধরনের অভিযোগ তার বিরুদ্ধে নেই উল্লেখ করে বলেন, তিনি ক্ষমতায় থাকাকালীন পৌরসভায় কোন ধরনের অনিয়ম করেননি। তিনিও তাকে নির্বাচিত করার আহ্বান জানান। পরে তিনিও জনতার নানামুখি প্রশ্নের জবাব দেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: