চট্টগ্রাম মহানগর এখনও ফাঁকা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক, ১৩ আগস্ট ২০১৯ইং, মঙ্গলবার: ঈদকে কেন্দ্র করে চিরচেনা চট্টগ্রাম মহানগর এখন অনেকটাই ফাঁকা। গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে স্বল্প সংখ্যক গাড়ি চলাচল করলেও অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। যানবাহন নেই। এ যেন কোলাহলমুক্ত নগর। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) চট্টগ্রাম নগীরর নিউমার্কেট, আন্দরকিল্লা, লালদীঘি, কোতোয়ালি, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, আগ্রাবাদ, সল্টগোলা ক্রসিং, জিইসি, টাইগারপাস, ২ নং গেইট, নতুনব্রীজ এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট ফাঁকা দেখা গেছে। ব্যক্তিগত যানবাহনের সংখ্যা নগন্য। পাশাপাশি গণপরিবহনও কমে গেছে।

রোববার (১১ আগস্ট) থেকে ঈদের ছুটি শুরু হলেও এর আগেই বৃহস্পতিবার বিকেলে (৮ আগস্ট) অনেকে শহর ছেড়েছেন। শুক্রবারও (৯ আগস্ট) পরিবার নিয়ে গ্রামে গেছেন অনেকে। বুধবার (১৪ আগস্ট) বেশ কিছু অফিস-আদালত খুলবে। তবে সবার উপস্থিতি দেখতে আরও দুয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে। এদিকে, ঈদ সেলামির নামে মৌসুমী রিকশা চালক ও সিএনজি অটোরিকশা চালকরা নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে তিনগুণেরও বেশি ভাড়া আদায় করছে।
জানা যায়, ঈদুল আজহা উপলক্ষে ৬০ লাখ নগরবাসীর মধ্যে প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ মানুষই নগর ছেড়েছেন। তবে রয়ে গেছেন আদি বাসিন্দারা। এছাড়াও সংবাদমাধ্যমে কর্মরত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যাদের ছুটি মেলেনি কিংবা একান্ত ব্যক্তিগত ও পারিবারিক প্রয়োজনে যারা নাড়ির টানে যেতে পারেন নি; তারা আছেন শহরে। ঈদের ছুটিতেও বিভিন্ন সরকারি অফিস-আদালত ও বেসরকারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে নিরাপত্তারক্ষীরা দায়িত্ব পালন করছেন। জননিরাপত্তায় আছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও। ঈদের ছুটি শেষে সবাই যখন নগরমুখী হবেন, তখন বন্দরনগর আবারও প্রাণ ফিরে পাবে, মুখরিত হবে চিরচেনা চট্টগ্রাম শহর। ডেঙ্গুর প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় চিকিৎসকদের ছুটি বাতিল করা হয়। সারাদেশে ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় মশক নিধন অভিযানের যথাযথ বাস্তবায়ন ও নিবিড় তদারকির জন্য শুক্রবার (২ আগস্ট) এ সংক্রান্ত পৃথক আদেশ জারি করেছে সরকার। আদেশে ছুটিতে যাওয়া স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে স্ব-উদ্যোগে কর্মস্থলে যোগদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
স্বাস্থ্য বিভাগের সব পর্যায়ের চিকিৎসক, নার্স ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
সারা দেশে ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। ডেঙ্গু পরিস্থিতি পর্যালোচনামূলক এক সভায় সোমবার এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
সভায় সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম। সোমবার রাতে স্বাস্থ্য বিভাগের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা টেলিফোনে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*